ভিতরে

খুলনায় কোভিড মোকাবেলায় ভূমিকা পালন করছে আইসিটি ভিত্তিক উদ্যোগ

॥ জাহিদ হোসেন ॥
খুলনা, ২৭ জুন, ২০২১ : জেলা প্রশাসনের নেয়া অনন্য সাইবারনেটিক উদ্যোগ খুলনায় কোভিড-১৯ মোকাবেলায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে।
তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) ভিত্তিক প্রতিরোধমূলক উদ্যোগ গ্রহণ করে পুরো দেশের সাথে তাল মিলিয়ে চলেছে এই জেলা। 
জেলা প্রশাসক মো. হেলাল হোসেন তার কার্যালয়ে বাসসকে বলেন, করোনা ভাইরাস সংকটে ব্যবস্থাপনা, পর্যবেক্ষণ, সমন্বয় ও উদ্ভাবন-এই চতুর্মাত্রার ভিত্তিতে জেলা প্রশাসনের চলমান মূল কার্যক্রম পরিচালিত হয়েছে, যা দেশ জুড়ে প্রশংসিত হয়েছে। 
তিনি বলেন, বিভিন্ন ডিজিটাল অ্যাপস এবং সফটওয়্যার ভিত্তিক উদ্ভাবনী উদ্যোগ করোনা ভাইরাস মহামারীর বিরুদ্ধে লড়াইয়ে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির সর্বাধিক ব্যবহার নিশ্চিত করছে। সে অনুযায়ী গত ১১ মাসে এই সাইবারনেটিক অ্যাপ্লিকেশনগুলো করোনার প্রকোপ মোকাবেলায় সহায়তা করছে।
এই ডিজিটাল অ্যাপস এবং সফটওয়্যারগুলো হল -‘ইমার্জেন্সি মেডিকেল সার্ভিসেস খুলনা’ (স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা),  ‘বেসরকারি মানবিক সহায়তা সেল’ (ত্রাণ বিতরণ), ‘ডোর টু ডোর খুলনা (ডি ২ ডি কে)’ এবং কৃষিপণ্য, হাঁস-মুরগি ও দুগ্ধ ব্যবস্থাপনা ভিত্তিক ডিজিটাল অ্যাপস ‘হাটের মাথায় কাঁচা বাজার’, ‘ডিজিটাল সুন্দরবন প্রোটিন হাউস’, ও ‘ঘরে বসে কৃষি বাজার করি’। 
এছাড়া রয়েছে ‘কৃষকের হাসি’ এবং কৃষকদের কাছ থেকে চাল সংগ্রহের ডিজিটাল অ্যাপস ‘ডিজিটাল রাইস প্রোকিউরমেন্ট’। ‘ডিজিটাল প্রাইমারি এডুকেশন, খুলনা’ এবং ডিজিটাল সেকেন্ডারি এডুকেশন খুলনা’, ইউটিউব চ্যানেল ভিত্তিক ইন্টারেক্টিভ অনলাইন টিচিং প্ল্যাটফর্ম এবং দুটি ফেসবুক পেজ। এছাড়া রয়েছে- একটি ওয়েবসাইট এবং মোবাইল অ্যাপ ‘অনলাইন মেডিসিন মার্ট খুলনা’ এবং ‘অনলাইন কুরবানী হাট খুলনা’।
তিনি বলেন, খুলনা শিশু হাসপাতালের সহযোগিতায় জেলা প্রশাসন করোনার সংকটে ঘরে ঘরে জরুরি মেডিকেল সেবা পৌঁছে দেয়ার লক্ষ্যে ‘ইমারজেন্সি মেডিকেল সার্ভিসেস খুলনা’ অ্যাপটি চালু করে। 
দরিদ্র জনগণের দোরগোড়ায় খাদ্য সহায়তা পৌঁছে দেয়ার লক্ষ্যে ‘বেসরকারি মানবিক সহায়তা সেল’ প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে এবং এর পাশাপাশি, গোপনীয়তা বজায় রেখে সাহায্য প্রার্থীরা যাতে সহায়তার জন্য আবেদন করতে পারেন সেই লক্ষ্যে ডোর টু ডোর খুলনা (ডি২ডিকে) অ্যাপ চালু করা হয়েছে।
প্রান্তিক কৃষকদের জন্য কৃষিপণ্য, হাঁস-মুরগি ও দুগ্ধজাত পণ্য বাজারজাতকরণ সহজ করা এবং বাজারকে ডিজিটালি স্বচ্ছ করার মাধ্যমে মানুষ যাতে যথাযথ বিপণনের মাধ্যমে উপকৃত হয় এবং পণ্যের ন্যায্য মূল্য পায় এবং তা আবাসিক এলাকাগুলোতে সরবরাহ করতে পারে সেই জন্য তিনটি ডিজিটাল অ্যাপস- ‘হাটের মাথায় কাঁচা বাজার’, ‘সুন্দরবন প্রোটিন হাউস’ এবং ‘ঘরে বসে কৃষি বাজার করি’ চালু করা হয়েছে। 
তিনি বলেন, স্বচ্ছ ও সহজ আর্থিক লেনদেন সরকারের চাল সংগ্রহ কার্যক্রমের সাথে সমন্বয় সাধনের লক্ষ্যে বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো ‘ডিজিটাল রাইস প্রকিউরমেন্ট’ অ্যাপ চালু করা হয়েছে। এর মাধ্যমে আর্থিক লেনদেনের ক্ষেত্রে দুর্নীতিমুক্ত পরিবেশে স্বচ্ছভাবে চুক্তির শর্তাবলী সাপেক্ষে উপযুক্ত মিলারদের কাছ থেকে চাল সংগ্রহ করা হচ্ছে। 
তিনি বলেন, ক্রমবর্ধমান চাহিদায় সাড়া দিয়ে করোনাভাইরাস (কোডিভ-১৯) মহামারী সৃষ্ট লকডাউনের মধ্যে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীদের জন্য একটি অনলাইন শিক্ষা ব্যবস্থা চালু করা হয়েছে।
মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর এবং প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের সহযোগিতায় খুলনা জেলা প্রশাসন মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষার্থীদের জন্য ইউটিউব চ্যানেল এবং ফেসবুক পেজে আইসিটি ভিত্তিক দুটি ডেডিকেটেড রেকর্ডকৃত শিক্ষামূলক ভিডিও কনটেন্ট চালু করেছে।
পাশাপাশি, করোনা ভাইরাস বিস্তারের মধ্যেই শিক্ষামূলক কার্যক্রম চালিয়ে যাওয়ার লক্ষ্যে সুন্দরবন অনলাইন স্কুল খুলনায় শিক্ষার্থীদের জন্য অনলাইন ক্লাস শুরু করেছে।
করোনা মহামারীর কারণে কৃষক ও ক্রেতাদের স্বাস্থ্য সুরক্ষার কথা মাথায় রেখে জেলা প্রশাসন গত ঈদুল আজহায় কোরবানির পশু ক্রয়-বিক্রয়ের জন্য একটি ডিজিটাল গবাদি পশুর বাজারের মোবাইল অ্যাপও চালু করে।

আপনি কি মনে করেন?

0 টি পয়েন্ট
উপনোট ডাউনভোট
উত্তর দিন

মন্তব্য করুন

বাংলাদেশকে ২৫ লাখ ডোজ কোভিড টিকা উপহার দেবে যুক্তরাষ্ট্র

চাঁপাইনবাবগঞ্জে করোনা চিকিৎসা সেবা বাড়ানোর দাবিতে জেলা বিএনপির স্মারক লিপি প্রদান