ভিতরে

হাইতির নিহত প্রেসিডেন্টকে শুক্রবার সমাহিত করা হচ্ছে

আততায়ীর হামলায় নিহত হওয়ার দুই সপ্তাহপরে কঠোর নিরাপত্তার মধ্যে শুক্রবার হাইতির নিহত প্রেসিডেন্টকে শেষ বিদায় জানাচ্ছে শোকার্ত জনতা। দারিদ্র, দুর্নীতি এবং রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতার মধ্যে এই হত্যা কান্ডে দেশটি টালমাটাল হয়ে পড়ে। 
গত ৭ জুলাই ভোরে প্রেসিডেন্ট জোভলেন ময়েসকে (৫৩) তার বাসভবনে গুলি করে হত্যা করা হয়। হাইতির উত্তরাংশে তার নিজ শহর কেপ-হাইতিয়েনে তাকে সমাহিত করা হচ্ছে। 
সরকারী অনুষ্ঠানসূচি অনুযায়ী অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া সকালে শুরু হওয়ার কথা এবং বেশ কয়েক ঘন্টা ধরে তা চলবে, অনুষ্ঠানটি শোকার্তদের দেখার জন্য বড় পর্দা স্থাপন করা হয়েছে।
ময়েসের বিধাবা স্ত্রী, প্রেসিডেন্টের আত্মীয় স্বজন, মন্ত্রীসভার সদস্য এবং বর্তমান ও প্রাক্তন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, ধর্মীয় ব্যক্তিত্ব এবং ট্রেড ইউনিয়ন এবং সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা এই বিদায় অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন বলে আশা করা হচ্ছে।
কেপ-হাইতিয়েন বৃহস্পতিবার শান্ত ছিল, কিন্তু একদিন আগে পুলিশ প্রধান লিওন চার্লস বিদায় অনুষ্ঠানের নিরাপত্তা তদারকির জন্য পরিদর্শনে গেলে সেখানে সংঘাত শুরু হয়।
স্থানীয় অধিবাসীরা ময়েসকে রক্ষা করতে ব্যর্থতার জন্য পুলিশ প্রধানকে দায়ী করেন, ওই হামলায় প্রেসিডেন্টের স্ত্রী গুরুতর আহত হন। আপাতদৃষ্টিতে মনে হয় কলম্বিয়ার অবসরপ্রাপ্ত সেনাদের একটি গ্রুপ এই হামলা চালায়। হামলায় প্রেসিডেন্ট গার্ডের কেউ আহত হয়নি। 
এ পর্যন্ত ২০ জনের বেশী লোককে গ্রেফতার করা হয়েছে। এদের বেশীর ভাগই কলম্বিয়ান এবং পুলিশ বলছে, এই ষড়যন্ত্রের পেছনে হাইতিয়ান রয়েছে। রাজনৈতিক উচ্চাকাক্সক্ষা এবং বিদেশী যোগসূত্র রয়েছে।

আপনি কি মনে করেন?

0 টি পয়েন্ট
উপনোট ডাউনভোট
উত্তর দিন

মন্তব্য করুন

কভিড-১৯ এর উৎস তদন্তে চীনের বিরোধিতা ‘দায়িত্বজ্ঞানহীন’ : হোয়াইট হাউস

ভারতে একদিনে করোনায় ৩৫,৩৪২ জন আক্রান্ত, নিহত ৪৮৩ জন