ভিতরে

লা লিগা: রিয়ালকে আবারো রক্ষা করলেন বেনজেমা

টানা দ্বিতীয় সপ্তাহে রিয়াল মাদ্রিদকে রক্ষা করলেন ফ্রেঞ্চম্যান করিম বেনজেমা। তার দুই গোলেই শনিবার লা লিগায় ধুকতে থাকা এলচেকে ২-১ গোলে পরাজিত করেছে গ্যালাকটিকোরা।
গত সপ্তাহে বেনজেমার শেষ মুহূর্তের গোলে টেবিলের শীর্ষে থাকা নগর প্রতিদ্বন্দ্বী এ্যাথলেটিকো মাদ্রিদের সাথে ১-১ গোলের ড্র নিয়ে মাঠ ছেড়েছিল রিয়াল। আবারো সেই বেনজেমার হাত ধরেই রেলিগেশনের ঝুঁকিতে থাকা এলচের বিপক্ষে পিছিয়ে থেকেও জয় নিয়েই মাঠ ছেড়েছে স্বাগতিকরা। ৯১ মিনিটে বেনজেমার গোলে আলফ্রেডো ডি স্টিফানোতে রিয়ালের জয় নিশ্চিত হয়।
দিনের আরেক ম্যাচে গেতাফের সাথে গোল শুন্য ড্র করে পয়েন্ট হারিয়েছে এ্যাথলেটিকো মাদ্রিদ। সে কারনে দিয়েগো সিমিওনের দলের থেকে ৬ পয়েন্ট পিছিয়ে টেবিলের দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে রিয়াল। এক পয়েন্ট পিছিয়ে তৃতীয় স্থানে রয়েছে বার্সেলোনা। সোমবার তলানির দল হুয়েস্কার মুখোমুখি হবে কাতালান জায়ান্টরা।
এ্যাথলেটিকোর বিপক্ষে ইনজুরি কাটিয়ে সময়মত দলে ফিরেছিলেন বেনজেমার। গত সাত দিনে তার তিন গোলেই রিয়াল গুরুত্বপূর্ণ চার পয়েন্ট সংগ্রহ করেছে। এলচের বিপক্ষে ৭৩ মিনিটে সমতা ফেরানোর পর দুর্দান্ত এক শটে ইনজুরি টাইমে তিনি দলের জয় নিশ্চিত করেন। ম্যাচ শেষে বেনজেমা বলেছেন, ‘দ্বিতীয় গোলটি দুর্দান্ত ছিল। বিশেষ করে এই গোলেই তিন পয়েন্ট নিশ্চিত হয়েছে। অন্য যেকোন সময়ের তুলনায় আমি অনেক বেশী খুশী।’
হাঁটুর ইনজুরি কাটিয়ে জানুয়ারির পর প্রথমবারের মত দলে ফিরেছিলেন অধিনায়ক সার্জিও রামোস। যদিও বদলী খেলোয়াড় হিসেবে ৬১ মিনিটে তিনি মাঠে নামেন। আটালান্টার বিপক্ষে মঙ্গলবার চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ম্যাচে তাই রামোসের খেলা নিয়ে কোন শঙ্কা থাকলো না। জানুয়ারি থেকে আরো মাঠের বাইরে থাকা বেলজিয়ান তারকা এডেন হ্যাজার্ডর দ্বিতয়ার্ধে বদলী বেঞ্চ থেকে মাঠে নেমেছিলেন। প্রথম লেগে আটালান্টার বিপক্ষে ১-০ গোলে এগিয়ে থাকা রিয়ালের হয়ে হ্যাজার্ডও দ্বিতীয় লেগে খেলতে পারবেন। মঙ্গলবারের ম্যাচকে সামনে রেখে কাল বিশ্রাম দেয়া হয়েছিল টনি ক্রুস ও লুকা মড্রিচকে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত দলকে রক্ষা করতে তাদেরকেও মাঠে নামানো হয়।
প্রথমার্ধে মাদ্রিদই আধিপত্য দেখিয়েছে। কিন্তু গোলের তেমন একটা সুযোগ তৈরী করতে পারেনি। ফেডে ভালভার্দের পাসে ভিনসিয়াস জুনিয়র ডান দিক থেকে ক্রস করলেও সঠিক সময়ে তা ধরতে পারেননি বেনজেমা। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে উভয় দলই পেনাল্টির আবেদন করেছিল। রামোসের সাথে ফাউলের কারণে এলচের ইভান মারকোনে অবশ্য একটি ফ্রি-কিক আদায় করে নিয়েছিলেন। এরপর গুডিও কারিলোকে ফাউলের অপরাধে কোনমতে রক্ষা পান রামোস। ৬১ মিনিটে অবশ্য আর শেষ রক্ষা হয়নি। কর্নার থেকে ডানি কালভো রাফায়েল ভারানের মাথার উপর দিয়ে উঠে হেডের সাহায্যে এলচেকে এগিয়ে দেন। এক গোলে পিছিয়ে থেকে আক্রমনাত্মক হয়ে উঠে রিয়াল। রামোস, ইসকো ও ফেডে ভালভার্দে একে একে মড্রিচ, ক্রুস ও রডরিগোর জন্য গোলের পথ তৈরী করে দিলেও সাফল্য আসেনি। ১০ মিনিট পর অবশেষে সমতায় ফিরে মাদ্রিদ। শর্ট কর্নার তেকে মড্রিচের ক্রসে বেনজেমা দলকে সমতায় ফেরান। ইনজুরি টাইমে রডরিগোর সহায়তায় অসাধারন শটে বেনজেমা নিজের দ্বিতীয় গোলের পাশাপাশি দলের জয় নিশ্চিত করেন।

আপনি কি মনে করেন?

0 টি পয়েন্ট
উপনোট ডাউনভোট

এসবি চীফ হলেন মনিরুল ইসলাম

বুন্দেসলিগা: লিওয়ানদোস্কির মাইলফলক স্পর্শের দিনে বায়ার্নের জয়ের ধারা অব্যাহত