ভিতরে

অলিম্পিকের মধ্যেই চলমান জরুরিীঅবস্থা এক সপ্তাহ বৃদ্ধি করলো জাপান

অলিম্পিক চলাকালীন অবস্থায় করোনা মহামারীতে চারটি প্রদেশে চলমান জরুরি অবস্থা আরো এক সপ্তাহের জন্য বৃদ্ধি করেছে জাপান। 
বৃহস্পতিবার সপ্তাহে  প্রথমবারের মত দেশজুড়ে ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ১০ হাজার ছাড়িয়ে যাওয়ায় এই সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয়েছে জাপান সরকার। ইতোমধ্যেই দেশটির স্বাস্ব্য বিশেষজ্ঞরা সতর্ক করে দিয়ে জানিয়েছেন করোনার ডেল্টা ভেরিয়েন্ট প্রতিদিনই বিপদজনক হয়ে দেখা দিচ্ছে। 
এশিয়ার অন্যান্য দেশের তুলনায় জাপানে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা খুব একটা বেশী ছিল না। এ পর্যন্ত দেশটিতে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রায় ১৫ হাজার মানুষ মৃত্যুবরণ করেছে। গত বছর মার্চে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া এই মহামারী সত্বেও জাপানে কখনই কঠোর লকডাউন ঘোষণা করা হয়নি। যদিও খুব কম সংখ্যক জনগণ এখন পর্যন্ত ডাবল ডোজ ভ্যাক্সিন নিতে পেরেছেন।
শুক্রবার টোকিও অলিম্পিক সংশ্লিষ্ঠদের মধ্যে নতুন করে ২৭ জনের আক্রান্তের তথ্য নিশ্চিত করেছেন আয়োজকরা, গেমস শুরু হবার পর যা সর্বোচ্চ। প্রধানমন্ত্রী ইওশিহিদে সুগা জানিয়েছেন চিবা, কানাগাওয়া, সেইতামা ও ওসাকাতে জরুরি অবস্থার মেয়াদ বৃদ্ধি করা হয়েছে। এর অর্থ হচ্ছে আগামী ২২ আগস্ট শেষ হতে যাওয়া এই জরুরী অবস্থা এখন আগামী মাসের শেষ পর্যন্ত চলবে। উল্লেখ্য, টোকিও শহরও এই জরুরী অবস্থার মধ্যেই রয়েছে। 
শুক্রবার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে এ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাক্সিন গ্রহণের বয়সসীমা ৪০ বছর নির্ধারণ করা হয়েছে। বর্তমানে জাপানে শুধুমাত্র মর্ডানা ও ফাইজার টিকা প্রচলিত আছে। 
অলিম্পিক আয়োজক সূত্র নিশ্চিত করেছে গতকাল ২৭টি নতুন কেসের মধ্যে তিনজন এ্যাথলেট রয়েছে। এ নিয়ে গেমস সংশ্লিষ্ট ভাইরাস আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ২২৫। এর মধ্যে মাত্র ৯৮ জন জাপানের বাইরে থেকে এসেছেন।

আপনি কি মনে করেন?

0 টি পয়েন্ট
উপনোট ডাউনভোট
উত্তর দিন

মন্তব্য করুন

মিক্সড ডাবলসের সেমিফাইনাল থেকেও বিদায় নিলেন জকোভিচ

ক্রিকেট থেকে বিরতিতে স্টোকস