ভিতরে

করোনা মোকাবেলায় জেলা পর্যায়ে সচিবদের দায়িত্ব দেয়া প্রধানমন্ত্রীর যুগান্তকারী সিদ্ধান্ত : খালিদ মাহমুদ চৌধুরী

নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় জেলা পর্যায়ে সচিবদের  দায়িত্ব দেয়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার যুগান্তকারী সিদ্ধান্ত। এর ফলে খাদ্য বিতরণ ও ঔষধ সামগ্রী পৌঁছে দেয়ার ক্ষেত্রে চেইন অব কমান্ড বজায় রয়েছে।
প্রতিমন্ত্রী আজ মঙ্গলবার মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে মন্ত্রণালয়ের উদ্ভাবনী কাজে বিশেষ অবদানের জন্য মন্ত্রণালয় ও সংস্থার ছয়জন কর্মকর্তার মাঝে ‘উদ্ভাবক পুরস্কার ২০২১’ প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।
করোনা মোকাবেলায় দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের প্রশংসা করে খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, করোনাকালে খাদ্য ও ঔষধ বিতরণ কার্যক্রম সহজ হয়েছে। ইউএনও, ডিসিরা মানুষের দ্বারে দ্বারে গেছেন। মানুষ আরো সাহসী হয়েছে। 
নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের সচিব মোহাম্মদ মেজবাহ্ উদ্দিন চৌধুরী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন। কোভিড-১৯ প্রতিরোধে জনবান্ধব (নন-ইনভেসিভ ভেন্টিলেটর, ডিজইনফেক্ট্যান্ট ওভেন, অটোমেটিক হ্যান্ড স্যানিটাইজার)’ উদ্ভাবনীর জন্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব সঞ্জয় কুমার বণিক ও বাংলাদেশ মেরিন একাডেমীর প্রদর্শক মুঃ খালেদ সালাউদ্দিন ‘জব-বহমরহববৎরহম ড়ভ ঈচঅ ঙহব ঝঃড়ঢ় ঝবৎারপব: অ ঝঁংঃধরহধনষব ঝড়ষঁঃরড়হং ঃড় ঈড়সনধঃ চধহফবসরপ (ঈড়ারফ-১৯) ঝরঃঁধঃরড়হ’ উদ্ভাবনের জন্য চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের সদস্য (প্রশাসন ও পরিকল্পনা) মোঃ জাফর আলম; ‘আইসিটি ইকুইপমেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম’ এর জন্য মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব (প্রশাসন ও বাজেট) ড. আ.ন.ম. বজলুর রশীদ ও সিস্টেম এনালিস্ট জি এম ফয়সাল আহমদ এবং ‘সভাকক্ষ ব্যবহারের ব্যবস্থাপনা উন্নয়ন এবং আয়োজনের পরিকল্পনা গ্রহণ সহজীকরণ’ এর জন্য সচিবের একান্ত সচিব মোঃ আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ পুরস্কার পান।
প্রতিমন্ত্রী পুরস্কারপ্রাপ্ত চারজনের হাতে পুরস্কার তুলে দেন। ঢাকার বাহিরের দু’জনকে অনলাইনে পুরস্কার প্রদান করা হয়।
পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, উদ্ভাবনী পদক্ষেপ সবক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ। উদ্ভাবনী চিন্তা শক্তির কারণে পৃথিবী এগিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশও এগিয়ে যাচ্ছে। এর মূল উদ্ভাবক বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী দেশরতœ শেখ হাসিনা। দেশ এগিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রী বিভিন্ন ধরনের পদক্ষেপ নিয়েছেন, যা সহায়ক শক্তি হিসেবে কাজ করছে। তিনি বলেন, উদ্ভাবনী চিন্তা-ভাবনা একটি শক্তি। এ শক্তির প্রয়োজন আছে। এ শক্তি সঞ্চয় করতে পারলে উন্নয়ন আরো গতিশীল হবে।
করোনা মহামারী মোকাবেলায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাহসী ভুমিকার কথা উল্লেখ করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, করোনা ভাইরাস সমগ্র পৃথিবীকে ঘায়েল করে ফেলেছিল। উন্নত বিশ^ এবং ইউরোপের দেশগুলোর সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধানরা করোনা মোকাবেলায় দিশেহারা হয়ে পড়েছিল। করোনা পরিস্থিতিতে ব্যাপক ভীতি তৈরি হয়েছিল। সে ভীতিটা দূর করে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রী করোনা মোকাবেলায় বাংলাদেশের মানুষকে সাহসী করে তুলেছেন।
খালিদ মাহমুদ করোনা মোকাবেলা নিয়ে আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী সারাদেশে প্রতিটি জেলায় প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট সকলের সাথে কথা বলেছেন, তাদেরকে সাহসী করে তুলেছেন। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী সব সময় আমাদের সাহস দেন, পথ দেখান। তাঁর এ সাহস আমাদের পথ চলায় পাথেয় হয়ে থাকবে। প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে সকলে সম্মিলিতভাবে কাজ করছে, অগ্রযাত্রা থমকে যায়নি।

আপনি কি মনে করেন?

0 টি পয়েন্ট
উপনোট ডাউনভোট
উত্তর দিন

মন্তব্য করুন

নাশকতার মামলায় হেফাজত নেতা আজহারুল রিমান্ডে

সরকার শক্তিশালী পোশাকখাত তৈরীতে কাজ করছে : বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী