ভিতরে

বর্তমান চ্যাম্পিয়ন পর্তুগালকে বিদায় করে শেষ আটে বেলজিয়াম

থ্রোগান হ্যাজার্ডের দুর্দান্ত গোলে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন পর্তুগালকে কাঁদিয়ে ইউরো চ্যাম্পিয়নশীপের শেষ আটে পৌঁছে গেছে বেলজিয়াম। সেভিয়ায় গতকাল বিরতির ঠিক আগে থ্রোগানের গোলে বিশ্বের এক নম্বর দল বেলজিয়ামের ১-০ গোলের জয় নিশ্চিত হয়। কোয়ার্টার ফাইনালের হাই ভোল্টেজ ম্যাচে বেলজিয়ামের প্রতিপক্ষ টুর্নামেন্টের আরেক ফেবারিট ইতালি। 
পর্তুগীজ তারকা ক্রিস্টিয়ানো রোনাল্ডো প্রথমার্ধে একটি ফ্রি-কিক ছাড়া আর কিছুই করে দেখাতে পারেননি। এর মাধ্যমে ৩৬ বছর বয়সী এই জুভেন্টাস স্ট্রাইকার সর্বোচ্চ আন্তর্জাতিক গোলের রেকর্ড ভাঙ্গতে পারলেন না, গ্রুপ পর্বের পাঁচ গোলকে সঙ্গী করেই তাকে বিদায় নিতে হলো। রাফায়েল গুয়েরেইরোর শেষ মুহূর্তের শট পোস্টে না লাগলে পর্তুগাল হয়ত ম্যাচটি অতিরিক্ত সময়ে নিয়ে যেতে পারতো। বিপরীতে বেলজিয়াম বেশ দাপটের সাথে পুরো ম্যাচেই খেলেছে, ছন্দ ধরে রেখে একের পর এক কাউন্টার এ্যাটাকে তারা পর্তুগীজ রক্ষনভাগ ও গোলরক্ষক রুই প্যাট্রিসিওকে ব্যস্ত রেখেছিল। এক গোলের ব্যবধান হলেও এই জয়টা বেলজিয়ামেরই প্রাপ্য ছিল। 
আগামী শুক্রবার মিউনিখের আলিয়াঁজ এরিনাতে শেষ আটে তাদের প্রতিপক্ষ ইতালি। সম্ভবত এই ম্যাচটিতে খেলতে পারবেন না দলের মূল ভরসা কেভিন ডি ব্রুইনা। গতকাল বিরতির ঠিক পরপরই ৪৮ মিনিটে পর্তুগীজ মিডফিল্ডার হুয়াও পালহিনহার পিছন থেকে একটি ট্যাকেলে গোঁড়ালিতে আঘাত পেয়ে মাঠ ত্যাগে বাধ্য হন এই তারকা। 
দুই দল মিলিয়ে বেশ কয়েকজন তারকার ভিড়ে কাল ম্যাচ শেষে মঞ্চের মূল নায়ক হয়ে উঠেছিলেন থ্রোগান হ্যাজার্ড। বরুশিয়া ডর্টমুন্ডের এই উইঙ্গারের গোলেই বিশ্বের শীর্ষ দলটির জয় নিশ্চিত হয়। বড় ভাই বেলজিয়ান অধিনায়ক এডেন হ্যাজার্ড একসময় বলেছিলেন তার থেকেও থ্রোগান অনেক বেশী প্রতিভাবান। ভাইয়ের সেই আস্থার প্রতিদানই যেন প্রতিদিন দিয়ে যাচ্ছেন থ্রোগান। 
পাঁচ বছর আগে ফ্রান্সের মাটিতে অতি রক্ষনাত্মক কৌশলে খেলে শিরোপা জয় করা পর্তুগাল সেই পরিকল্পনায় অটল থেকেই পুরো ম্যাচে খেলেছে। কিন্তু বেলজিয়ামের দুর্দান্ত কাউন্টার এ্যাটাকের সফলতা এবার আর পর্তুগীজদের সফল হতে দেযনি। বিশ্বেও অন্যতম সৃষ্টিশীল ও প্রতিভাবান দল হিসেবে বেলজিয়ামকে বিবেচনা করা হয়। কালও তার আরো একবার প্রমান মিললো। 
গত সোমবার ফিনল্যান্ডের বিপক্ষে গ্রুপের শেষ ম্যাচে পুরো ৯০ মিনিট খেলার পর আবারো বেলজিয়ামের মূল একাদশে আক্রমনভাগে তিনজনের মধ্যে অন্যতম ছিলেন এডেন হ্যাজার্ড। অন্যদিকে পর্তুগালের রাইট-ব্যাক পজিশনে ইনজুরিতে থাকা নেলসন সেমেডোর স্থানে খেলতে নেমেছিলেন দিয়োগো ডালোট। 
ম্যাচের শুরুতে রোমেলু লুকাকুর সাথে বল আদান প্রদান করে হ্যাজার্ড একটি শট নিলেও তা লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। বাম দিক থেকে রেনাটো সানচেজের দুর্দান্ত এক পাসে দিয়োগো জোতার শট জালের ঠিকানা খুঁজে পায়নি। মাঝে রোনাল্ডো কয়েকটি আক্রমনের চেষ্টা কলেও সফল হতে পারেননি। যখনই তার পায়ে বল গেছে সেভিয়ায় উপস্থিত বেলজিয়ান সমর্থকরা তাকে উতসাহিত করেছে। ৩০ গজ দুর থেকে রোনাল্ডো একটি ফ্রি-কিকের সুযোগ পেলেও তা কাজে লাগাতে পারেননি। এর  মাধ্যমে সর্বকালের সর্বোচ্চ আন্তর্জাতিক গোলের রেকর্ডও গড়া সম্ভব হয়নি সিআর সেভেনের। বরং পর্তুগালের মধ্যমাঠ ভেঙ্গে বারবার সামনে এগিয়ে গেছেন লুকাকু। ৪২ মিনিটে অবশেষে সফল হয় বেলজিয়াম। রোনাল্ডোর একটি শট থেকে বল সহজেই ধরে কুর্তোয়া দ্রুত সামনে বাড়িয়ে দেন। লুকাকু সেটি বাড়িয়ে দেন ডি ব্রুইনার দিকে। বাম দিক থেকে আসা থ্রোগানের দিকে বলটি বাড়িয়ে দিতে সময় ক্ষেপন করেননি ডি ব্রুইনা। বলটি অবশ্য পেয়ে যান থমাস মুনিয়ের। তার এসিস্টে বুলেট গতির শটে প্যাট্রিসিওকে পরাস্ত করেন থ্রোগান। 
বিরতির পর আরো দ্রুতগতিতে ম্যাচ শুরু করে বেলজিয়াম। কিন্তু ডি ব্রুইনার ইনজুরিতে তাদের কিছুটা ছন্দপতন ঘটে। এই সুযোগে পর্তুগাল কিছুটা নড়েচড়ে বসে। হোতা ও হুয়াও ফেলিক্সের দুটি প্রচেষ্টা ব্যর্থ করে দেন কুর্তোয়া। কিছু সময়ের জন্য দুই দলের খেলোয়াড়দের মধ্যে বেশ উত্তেজনা দেখা দেয়। বাহু দিয়ে প্রতিপক্ষকে চ্যালেঞ্জ করার সুবাদে পেপে অল্পের জন্য লাল কার্ডের হাত থেকে রক্ষা পান। শেষ ১০ মিনিটে পর্তুগাল বেশ কিছু আক্রমন চালালেও তা শেষ পর্যন্ত কোন কাজে আসেনি।

আপনি কি মনে করেন?

0 টি পয়েন্ট
উপনোট ডাউনভোট
উত্তর দিন

মন্তব্য করুন

সংসদ অধিবেশন মুলতবি

নেদারল্যান্ডসকে কাঁদিয়ে শেষ আটে চেক প্রজাতন্ত্র