ভিতরে

পেট্রোবাংলার ২০১০-১১ অর্থবছরের অডিট আপত্তি দ্রত নিষ্পত্তির সুপারিশ

জাতীয় সংসদের সরকারী হিসাব সম্পর্কিত কমিটির সভায় পেট্রোবাংলার ২০১০-১১ অর্থবছরের অডিট আপত্তি দ্রত নিষ্পত্তির সুপারিশ করা হয়েছে।
কমিটির সভাপতি মোঃ রুস্তম আলী ফরাজীর সভাপতিত্বে আজ সংসদ সচিবালয়ে অনুষ্ঠিত সভায় এ সুপারিশ করা হয়।
কমিটির সদস্য আবুল কালাম আজাদ, মোঃ আব্দুস শহীদ, মোঃ আফছারুল আমীন, মোঃ শহীদুজ্জামান সরকার, আহসানুল ইসলাম (টিটু), মুন্তফা লুৎফল্লাহ এবং বেগম ওয়াসিয়া আয়শা খান সভায় অংশগ্রহণ করেন।
সভার শুরুতে মহান আল্লাহর তালার প্রতি শোকরিয়া আদায় ও প্রধানমন্ত্রীর সুযোগ্য নেতৃত্বে করোনা মহামারী মোকাবেলায় সময়োপোযোগী বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করায় কমিটির পক্ষ থেকে তাঁকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করা হয়। এছাড়াও ভাষা শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে তাদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করা হয়।
সভায় বাণিজ্যিক অডিট অধিদপ্তর (বর্তমান বিদ্যুৎ ও জ্বালানি অডিট অধিদপ্তর) প্রণীত বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের আওতাধীন পেট্রোবাংলা ও এর অধীন প্রতিষ্ঠানসমূহের ২০১০-২০১১ অর্থ-বছরের হিসাব সম্পর্কিত বাংলাদেশের কম্পট্রোলার এন্ড অডিটর জেনারেলের বার্ষিক অডিট রিপোর্ট ২০১১-২০১২ এ অন্তর্ভূক্ত অডিট আপত্তির ২৫ অনুচ্ছেদে ২৫টি আপত্তিউপস্থাপন করা হয়। এর মধ্যে কমিটি অডিট আপত্তির অনুচ্ছেদ ৪, ১১, ১৬ ও ২৫ নিষ্পত্তির জন্য সুপারিশ করে। অনুচ্ছেদ ৬, ১০, ১৩, ১৯, ২০ প্রমাণ সাপেক্ষে নিষ্পত্তির জন্য সুপারিশ করা হয়।
অবশিষ্ট অনুচ্ছেদগুলো নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়। আলোচনা শেষে বিভিন্ন সময় দিয়ে তা নিষ্পত্তির জন্য কমিটি জোর তাগিদ দেয় এবং অনিয়েমের সাথে জড়িত সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা- কর্মচারীর শাস্তি নিশ্চিতের সুপারিশ করা হয়।
কমিটি যেসব অডিট আপত্তির নিয়ে মামলা বিদ্যমান রয়েছে সেব মামলা দ্রত নিষ্পত্তির ব্যবস্থা নেয়ার সুপারিশ করে।
সভায় অর্থমন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব, সিভিল অডিট অধিদপ্তরের মহাপরিচালক, পেট্রোবাংলার মহাপরিচালক, অর্থ মন্ত্রণালয় এবং বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয় এবং সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাগণ সভায় উপস্থিত ছিলেন।

আপনি কি মনে করেন?

0 টি পয়েন্ট
উপনোট ডাউনভোট
উত্তর দিন

মন্তব্য করুন

অগ্নিঝরা মার্চের প্রথম দিন আগামীকাল

প্রকল্পের অর্থ দেশের উন্নয়নে ব্যয় করতে হবে : পরিবেশ মন্ত্রী