ভিতরে

বাংলাদেশের জ্বালানি খাতে আরও বিনিয়োগে আগ্রহী সিঙ্গাপুর

 প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান এমপি বলেছেন, সিঙ্গাপুর বাংলাদেশের জ্বালানি ও অবকাঠামো উন্নয়নসহ বিভিন্ন খাতে বিনিয়োগ বৃদ্ধির প্রতি গভীর আগ্রহ দেখিয়েছে।
তিনি বলেন, ‘যদিও সিঙ্গাপুর একটি ছোট দেশ, বিমানবন্দর, রেলওয়েসহ তাদের অনেক সফল প্রকল্প রয়েছে। বিশেষ করে নবায়নযোগ্য জ্বালানিতে বিনিয়োগ বাড়াতে দেশটি সহযোগিতার নতুন ক্ষেত্র অন্বেষণ করার আগ্রহ প্রকাশ করেছে।’ 
বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (বিডা) ভবনের কনফারেন্স রুমে আজ সিঙ্গাপুরের বাণিজ্য ও পরিবহণমন্ত্রী এস ইশ্বরনের সঙ্গে বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা এসব কথা জানান। 
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের উন্নয়নের ভূয়সী প্রশংসা করে সিঙ্গাপুরের পরিবহন ও বাণিজ্যমন্ত্রী এস ইশ্বরন দু’দেশের মধ্যে সহযোগিতার নতুন ক্ষেত্র উন্মোচনের ওপর জোর দিয়েছেন। 
সাংবাদিকদের সালমান ফজলুর রহমান বলেন, ‘বাংলাদেশ ও সিঙ্গাপুর উভয় দেশের মধ্যে বাণিজ্য ও বিনিয়োগ উল্লেখযোগ্য হারে বৃদ্ধি এবং মুক্ত বাণিজ্য চুক্তি (এফটিএ) সম্পাদনের লক্ষ্যে এগিয়ে যাচ্ছে। লজিস্টিক ক্ষেত্রে সিঙ্গাাপুরের দক্ষতা থেকে বাংলাদেশ বিভিন্নভাবে উপকৃত হতে পারে মর্মে অভিমত ব্যক্ত করেন তিনি।’  
তিনি বলেন, ‘সিঙ্গাপুর আমাদের পুরনো বন্ধু। আমাদের দেশের জ্বালানি খাতে তারা আগেই বিনিয়োগ করেছে। এবার প্রচলিত জ্বালানির পাশাপাশি নবায়নযোগ্য শক্তিতে বিনিয়োগ বাড়াতে আগ্রহের কথা বলেছে তারা। এতে বন্ধু প্রতীম দুই দেশের মধ্যে সহযোগিতার আরও নতুন দ্বার উন্মোচিত হবে।’ 
সিঙ্গাপুরের পরিবহন ও বাণিজ্যমন্ত্রী এস ইশ্বরন বলেন, ‘বর্তমান বৈশ্বিক সংকট কাটিয়ে সামনের দিনে এগিয়ে যাওয়ার পথ তৈরি ও বাণিজ্য সুবিধা বৃদ্ধি এবং সিঙ্গাপুরের মাধ্যমে আসিয়ান দেশগুলোর সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্ক আরও জোরদারে বিষয়ে আমরা একমত পোষণ করেছি। এসব বিষয় এগিয়ে নেয়ার ক্ষেত্রে দু’দেশের মধ্যে জয়েন্ট ওয়াকিং গ্রুপ তৈরির কাজ চলমান রয়েছে।’ 
তিনি বলেন, ‘উভয় দেশের বাণিজ্য, বিনিয়োগ এবং অর্থনৈতিক সহযোগিতা বৃদ্ধির যথেষ্ট সুযোগ রয়েছে। আইসিটি খাতে সিঙ্গাপুর বাংলাদেশের সাথে কাজ করতে পারে। বাংলাদেশ পর্যটনসহ বিভিন্ন বিষয়ে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে প্রচারণা বৃদ্ধি করতে পারে; যেখানে বাংলাদেশের বিপুল সম্ভাবনা রয়েছে।’ 
বৈঠকে বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (বিডা) এর নির্বাহী চেয়ারম্যান লোকমান হোসেন মিয়া, বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা) এর নির্বাহী চেয়ারম্যান শেখ ইউসুফ হারুণ ও ঢাকায় নিযুক্ত সিঙ্গাপুরের হাই কমিশনারসহ দু’দেশের সরকারি পর্যায়ের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।  

আপনি কি মনে করেন?

0 টি পয়েন্ট
উপনোট ডাউনভোট

একটি মন্তব্য

দাম বাড়ল সয়াবিন তেল ও চিনির

এলডিসি উত্তোরণ চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সরকার প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নিচ্ছে