ভিতরে

বিশ্বকাপ আসরে অংশ নেয়া পাঁচ দল

 আগামী ২০ নভেম্বর থেকে প্রথমবারের মত মধ্যপ্রাচ্যের কাতারে  শুরু হতে যাচ্ছে বিশ্বকাপ ফুটবল। বিশ্ব ক্রীড়াঙ্গনের অন্যতম আকর্ষনীয় এই ক্রীড়া আসরে অংশ নিচ্ছে ৩২টি দল। 
বিশ^কাপে সবচেয়ে বেশীবার অংশ নেয়া পাঁচ দল : 
ব্রাজিল : ২১ বার
বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ ২১বার অংশ নিয়ে তালিকার শীর্ষে রয়েছে ব্রাজিল। নি:সন্দেহে বিশ্ব ফুটবলের সবচেয়ে আধিপত্য বিস্তারকারী দলটির নামও ব্রাজিল। টানা ২১টি বিশ^কাপে অংশ নেয়া সেলেসাওরা এ পর্যন্ত খেলেছে ১০৯টি ম্যাচ। এর মধ্যে জয়ী হয়েছে ৭৩টি ম্যাচে, ১৮টি ম্যাচে পরাজিত হয়েছে, ১৮টি ম্যাচ ড্র হয়েছে। বিশ^ ফুটবলে সম্ভবত সবচেয়ে বেশী তারকার জন্ম দিয়েছে ব্রাজিল দল, যাদের মধ্যে রয়েছেন পেলে, রোনাল্ডো, রোমারিও, রোনালদিনহো, কাফু এবং এই তালিকা প্রতিদিনই বড় হচ্ছে। 
কোনবারই বাছাইপর্বে প্লে-অফ খেলার মাধ্যমে বিশ^কাপে অংশ নিতে হয়নি ব্রাজিলকে। সর্বোচ্চ পাঁচবার শিরোপা ঘরে তুলেছে হলুদ-সবুজ জার্সিধারীরা। ২০০২ সালের পর দুই দশক কেটে গেলেও এখনো পর্যন্ত শিরোপা বিহীন থাকা ব্রাজিল এবার গত কয়েক আসরের তুলনায় সবচেয়ে শক্তিশালী দল নিয়ে  এবারের আসরে মাঠে নামছে।
 
জার্মানী : ১৯ বার
বিশ^ফুটবলের আরেক পাওয়ারহাউজ জার্মানী ১৯ বার বিশ^কাপে অংশ নিয়ে এই তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে। জার্মানী এ পর্যন্ত বিশ^কাপে ৬৭ ম্যাচে জয়ী হয়েছে, ২২টিতে পরাজিত ও ২০টিতে ড্র করেছে। ২০১৪ আসরের ফাইনালে আর্জেন্টিনাকে ১১৩ মিনিটে মারিও গোতজের গোলে পরাজিত করে সর্বশেষ শিরোপা জিতেছে জার্মানী। কিন্তু ২০১৮ সালে কোচ জোয়াচিম লো’র অধীনে গ্রুপ পর্বে মাত্র তিন পয়েন্ট অর্জন করে বিদায় নিতে হয়েছিল। এ পর্যন্ত  দুইবার বিশ^কাপে অংশ নেয়নি জার্মানরা। প্রথমবারের মত ১৯৩০ সালে উরুগুয়েতে অনুষ্ঠিত বিশ^কাপে যেতে অস্বীকৃতি জানিয়েছির জার্মানী। এরপর ১৯৫০ সালে দ্বিতীয় বিশ^যুদ্ধ পরবর্তী বিধ্বস্ত দেশটি বিশ^কাপে অংশ নেয়নি। 
 
ইতালি : ১৮ বার
তালিকার তৃতীয় স্থানে থাকা ইতালি টানা দ্বিতীয়বারের মত বাছাইপর্বের বাঁধা পেরুতে ব্যর্থ হয়েছে। তবে আজ্জুরিরা এ পর্যন্ত ১৮ বিশ^কাপে ৪৫টি জয় নিশ্চিত করেছে। এছাড়া ১৭ ম্যাচে পরাজিত ও ২১টিতে তাদের ড্র রয়েছে। এবার প্লেÑঅফের সেমিফাইনালে নর্থ মেসিডোনিয়ার কাছে পরজিত হয়ে টানা দ্বিতীয়বারের মত বিশ^কাপের মূল পর্বে খেলতে ব্যর্থ হয়েছে। এর আগেও দুইবার বিশ^কাপে খেলতে পারেনি ইতালি। ১৯৩০ সালে অংশ নিতে অস্বীকৃতি জানানোর পর ১৯৫৮ সালে বাছাইপর্বের বাঁধা পেরুতে পারেনি।
 
আর্জেন্টিনা : ১৭ বার
আর্জেন্টিনা  এ পর্যন্ত ১৭টি বিশ^কাপে অংশ নিয়েছে। ২১টি আসরের মধ্যে তারা চারটি আসরে অংশ নিতে পারেনি। এ পর্যন্ত খেলা ৮১টি ম্যাচের মধ্যে আর্জেন্টিনা ৪৩টি ম্যাচে জয়ী হয়েছে এবং ২৩টিতে পরাজিত হয়েছে। স্বাগতিক স্বত্ব নিয়ে বিরোধীতা ও রাজনৈতিক কারনে ১৯৩৮, ১৯৫০ ও ১৯৫৪ সালে বিশ^কাপ থেকে নাম প্রত্যাহার করে নিয়েছিল আর্জেন্টিনা। 
প্রতিবারই তারকা সমৃদ্ধ দল নিয়ে মাঠে নামলেও কোনবারই দূর্ভাগ্য পিছু ছাড়েনি আর্জেন্টিনার। ১৯৭৮ ও ১৯৮৬ সালে দুইবার বিশ^কাপ শিরোপা ঘরে তুলেছে আর্জেন্টিনা। এবার দলের গোল্ডেন বয় লিওনেল মেসির সামনে সর্বশেষ সুযোগ বিশ^মঞ্চের শিরোপা দেশকে উপহার দেবার।
স্পেন : ১৫ বার
সমর্থকদের কাছে লা ফুরিয়া রোজা নামে পরিচিত স্পেন ১৯৩৪ সালে প্রথমবারের মত বিশ^কাপে খেলতে এসে কোয়ার্টার ফাইনালে ইতালির কাছে পরাজিত হয়ে বিদায় নিয়েছিল। মাঠে মধ্যে কিছু অপ্রীতিকর ঘটনার কারনে নির্ধারিত সূচির ম্যাচটি বাতিল হয়ে পরের দিন আবারো ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হয়েছিল। এ পর্যন্ত বিশ^ আসরে খেলা ৬৩টি ম্যাচের মধ্যে ৩০টিতে জয়ী হয়েছে ১৮টিতে পরাজিত হয়েছে। ২০১০ সালে নেদারল্যান্ডকে হারিয়ে একমাত্র শিরোপাটি জিতেছিল স্পেন। ১৯৭৪ সালে জার্মানী যখন পশ্চিম ও পূর্ব হিসেবে বিভক্ত হয়ে গিয়েছিল সেবার  স্পেন বিশ^কাপে অংশ দেশটি।

আপনি কি মনে করেন?

0 টি পয়েন্ট
উপনোট ডাউনভোট

একটি মন্তব্য

নাটোরে কৃষি প্রণোদনা পেলেন তিনহাজার ৮৫০ জন কৃষক

দুই তারকা সুয়ারেজ ও কাভানি যুগের শেষের পথে উরুগুয়ে