ভিতরে

নওগাঁ জেলায় ক্রমাগত সরিষার  চাষ বাড়ছে

জেলায় ক্রমাগত সরিষা চাষ বাড়ছে। মাঝখানে কৃষকরা সরিষা চাষে একেবারেই আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছিলেন। কিন্তু কয়েক বছর ধরে তারা সরিষা চাষে অধিক মনোনিবেশ করছেন। গত ৫ বছরে নওগাঁ জেলায় সরিসা চাষের পরিমাণ বেড়েছে ১৪ হাজার ৪৩০ হেক্টর। 
কৃষি বিভাগের উপ-পরিচালক আবু হোসেন জানিয়েছেন বর্তমানে সরক্রা সরিষা চাষে উৎসাহিত করতে কৃষকদের প্রণোদনা প্রদান, বাজারে সরিষার ভালো মূল্য পাওয়া, নতুন নতুন উন্নত জাতের উ™ভাবনের ফলে ফলন বৃদ্ধি  এবং পতিত জমিতে মধ্যবর্তী ফসল হিসেবে সরিষা চাষের মাধ্যমে লাভজনক হওয়ার কারণে কৃষকরা সরিষা চাষে আগ্রহী হয়ে উঠেছেন। সরিষা উত্তোলন করেই তাঁরা ঐ জমিতে বোরো চাষ করতে পারছেন। 
কৃষি বিভাগের সূত্রমতে চলতি ২০২২-২০২৩ রবি মৌসুমে জেলায় মোট ৪৩ হাজার ৬৯৫ হেক্টর জমিতে সরিষা চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারিত হয়েছে। নওগাঁ জেলায় ২০১৮-২০১৯ মৌসুমে ২৯ হাজার ২৬৫ হেক্টর জমিতে  সরিষা আবাদ হয়েছিল।২০১৯-২০২০ মৌসুমে ৩১ হাজার ১শ ৭৫ হেক্টর জমিতে, ২০২০-২০২১ মৌসুমে ৩১ হাজার ৩২০ হেক্টর জমিতে এবং ২০২১-২০২২ মৌসুমে ৩৪ হাজার ৭৪৫ হেক্টর জমিতে সরিষার আবাদ হয়েছিল। 
চলতি ২০২২-২০২৩ মৌসুমে জেলায় মোট ৪৩ হাজার ৬৯৫ হেক্টর জমিতে সরিষা অবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। উপজেলাভিত্তিক ধার্য়কৃত লক্ষ্যমাত্রার পরিমাণ হচ্ছে নওগাঁ সদর উপজেলায় ২ হাজার ৩১০ হেক্টর, রানীনগর উপজেলায় ৩ হাজার ৫৯০ হেক্টর, আত্রাই উপজেলায় ৩ হাজার ১২৫ হেক্টর, বদলগাছি উপজেলায় ১ হাজার ২৫০ হেক্টর, মহাদেবপুর উপজেলায় ২ হাজার ৩০৮ হেক্টর, পতœীতলা উপজেলায় ৬ হজার ৪৫০ হেক্টর, ধামইরহাট উপজেলায় ৩ হাজার ২৩৫ হেক্টর, সাপাহার উপজেলায় ৪ হাজার ৫১০ হেক্টর, পোরশা উপজেলায় ৪ হাজার ৪৭০ হেক্টর, মান্দা উপজেলায় ৬ হাজার ৩শ হেক্টর এবং নিয়ামতপুর উপজেলায় ৬ হাজার ৭৫ হেক্টর।  উল্লেখিত পরিমাণ জমি থেকে ৬৭ হাজার ৪০৫ মেট্রিক টন সরিষা উৎপাদিত হবে বলে কৃষি বিভাগের প্রত্যাশা।  
নওগাঁ জেলায় বর্তমানে কৃষকরা উন্নত জাতের বারী-১৪, বারী-১৫, বারী-১৭, বারী-১৮, বিনা-৪, বিনা-৭, বিনা-৯ এবং টরি-৭ জাতের সরিষার আবাদ করছেন। 

আপনি কি মনে করেন?

0 টি পয়েন্ট
উপনোট ডাউনভোট

একটি মন্তব্য

উরফির বিতর্কিত কর্মকাণ্ডে বিরক্ত হয়ে থানায় অভিযোগ

চ্যাম্পিয়ন্স লিগ: মেসি, এমবাপ্পের জোড়া গোলে পিএসজির বড় জয়