ভিতরে

আবারও শঙ্কা নিয়ে প্রেক্ষাগৃহে তারা

দক্ষিণী সিনেমার দাপটে অনেকটাই কোণঠাসা হয়ে পড়েছিল বলিউড সিনেমা। বক্স অফিসে একের পর এক মুখ থুবড়ে পড়ছিল সালমান, শাহরুখ, আমিরের মতো সুপারস্টারদের সিনেমা। তবে দীর্ঘ খরা কাটিয়ে কিছুদিন আগেই বলিউডের হাল ফিরিয়েছে আলিয়া ভাট ও রণবীর কাপুর অভিনীত ‘ব্রহ্মাস্ত্র’ সিনেমাটি। ঠিক এমন সময় মুক্তির দিন গুণছে অক্ষয় কুমার-জ্যাকুলিনের ‘রাম সেতু’।আসন্ন দিওয়ালিতে মুক্তি পাচ্ছে সিনেমাটি। তবে একইদিন পর্দায় আসছে অজয়-রাকুলের ‘থ্যাঙ্ক গড’ সিনেমাটি। আর এতেই আবার নতুন শঙ্কা তৈরি হয়েছে সিনেবোদ্ধাদের মাঝে।অনেকেই ধারণা করছেন, বলিউডের এই ক্রান্তিকালে একদিনে দুই সিনেমাটি মুক্তি বক্স অফিসে নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে। কারণ হিসেবে তারা দুটি সিনেমার একাধিক বিষয়কে সামনে এনেছেন। অক্ষয়ের শেষ মুক্তি পাওয়া ‘রক্ষা বন্ধন’ মুখ থুবড়ে পড়েছিল।শুধু তাই নয়, ‘সূর্যবংশী’র পর আর কোনো সফল ছবি উপহার দিতে পারেননি অক্ষয়। এমনকি তার আলোচিত ‘বচ্চন পান্ডে’, ‘সম্রাট পৃথ্বীরাজ’ও দর্শকমনে তেমন প্রভাব ফেলতে পারেনি। গড়পড়তা ব্যবসা করে নির্মাতাদের প্রচুর লোকসানের মুখে ফেলেছে অক্ষয়ের শেষ কয়েকটি ছবি।

এছাড়া ‘রাম সেতু’ সিনেমাটি এরইমধ্যে সমালোচনার সম্মুখীনও হয়েছে। প্রথম ঝলক দেখে অনেকেই বলেছেন, দুর্বল ভিএফএক্স। হলিউড ছবির দৃশ্য টুকে বানানো, এমন কথাও উঠেছে। অন্যদিকে অজয়ের ‘রানওয়ে ৩৪’ প্রত্যাশা অনুযায়ী ব্যবসা করতে পারেনি।এছাড়া সিনেবোদ্ধারা মনে করছেন, দর্শকরা এখন দক্ষিণী সিনেমার জোয়ারে ভাসছেন। সেই জায়গায় দুটি সিনেমা মুক্তি একদিনে দেওয়া জেনে বুঝে ঝুঁকি নেওয়া ছাড়া কিছু না। তবে এমন শঙ্কাকে অনেকটাই উড়িয়ে দিয়েছেন সিনেমা দুটির শিল্পী-কলাকুশলীরা। তাদের মতে, দুটি সিনেমাই বক্স অফিসে ঝড় তুলবে।এ প্রসঙ্গে রাকুল গণমাধ্যমে বলেন, একইদিনে দুটি সিনেমা মুক্তি আজ নতুন হচ্ছে না। এর আগেও একাধিক সিনেমাটি একসঙ্গে প্রেক্ষাগৃহে এসেছে। দর্শকরা সেগুলো গ্রহণও করেছেন। তাছাড়া এই দুটি সিনেমার গল্প, তারকা ও শিল্পী আলাদা। তাই আমার মনে হয়, আমাদের সিনেমাও দর্শকরা লুফে নেবেন। কিছুটা শঙ্কা থাকলেও সফল হবো।তবে সকল জল্পনা-কল্পনা ছাপিয়ে অক্ষয় কী পারবেন ঘুরে দাঁড়াতে? নাকি এগিয়ে যাবেন অজয়! সেটাই দেখার অপেক্ষা।

আপনি কি মনে করেন?

0 টি পয়েন্ট
উপনোট ডাউনভোট

একটি মন্তব্য

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত সালমান, ‘বিগ বস’ সামলাবেন করণ

দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ৫ জেলায় বাস্তবায়িত হচ্ছে ৮২ কোটি ৬৫ লাখ টাকার কৃষি উন্নয়ন প্রকল্প