ভিতরে

নেদারল্যান্ডসকে হারিয়ে সুপার টুয়েলভে শ্রীলংকা

 গ্রুপ পর্বে নিজেদের শেষ ম্যাচে নেদারল্যান্ডকে হারিয়ে চলমান অষ্টম টি-টোয়েন্টি বিশ^কাপে সুপার টুয়েলভ নিশ্চিত করেছে  শ্রীলংকা।
আজ প্রথম রাউন্ডে ‘এ’ গ্রুপের ম্যাচে শ্রীলংকা ১৬ রানে হারিয়েছে নেদারল্যান্ডসকে।
এই জয়ে ৩ খেলায় ২ জয়ে ৪ পয়েন্ট নিয়ে রান রেটে এগিয়ে থেকে টেবিলের শীর্ষে উঠলো শ্রীলংকা। ৩ খেলায় ৪ পয়েন্ট নিয়ে রান রেটে পিছিয়ে থেকে টেবিলের দ্বিতীয়স্থানে নেদারল্যান্ডস। ২ খেলায় ২ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয়স্থানে আছে নামিবিয়া। আজ এই গ্রুপের শেষ ম্যাচে সংযুক্ত আরব আমিরাতকে হারালেই রান রেটে এগিয়ে থাকার সুবাদে সুপার টুয়েলভে উঠবে নামিবিয়া। আর নামিবিয়া হেরে গেলে সুপার টুয়েলভে উঠবে নেদারল্যান্ডস।
ভিক্টোরিয়ার জিলংয়ে টস জিতে প্রথমে ব্যাটিংয়ের সিদ্বান্ত নেয় শ্রীলংকা। সাবধানে খেলতে থাকেন লংকান দুই ওপেনার কুশল মেন্ডিস ও পাথুম নিশাঙ্কা  পাওয়ার-প্লেতে বিনা উইকেটে ৩৬ রান তুলেন ।
সপ্তম ওভারে শ্রীলংকার উদ্বোধনী জুটি ভাঙ্গেন পেসার পল ভ্যান মিকেরেন। ২১ বলে ১৪ রান করা নিশাঙ্কাকে বোল্ড করেন তিনি।
নিশাঙ্কাকে শিকারের পরের ডেভিভারিতে তিন নম্বরে নামা ধনাঞ্জয়া ডি সিলভাকে খালি হাতে বিদায় দেন মিকেরেন।
৩৬ রানে ২ উইকেট পতনে চাপে পড়ে যায় শ্রীলংকা। তৃতীয় উইকেটে শ্রীলংকার স্কোর বোর্ড সচল রাখেন  মেন্ডিস ও চারিথা আসালঙ্কা। দ্রুত পরিস্থিতির সাথে মানিয়ে নিয়ে শ্রীলংকাকে চাপ মুক্ত করেন তারা। ৪৫ বলে ৬০ রানে জুটি গড়েন মেন্ডিস ও আসালঙ্কা। ১৫তম ওভারের প্রথম বলে আসালঙ্কার বিদায়ে জুটি ভাঙ্গে। বাস ডি লিডের বলের আউট হয়ে ব্যক্তিগত ৩১ রানে আউট হন আসালঙ্কা। ৩০ বল খেলে ৩টি চার মারেন তিনি।
আসালঙ্কা ফেরার ওভারেই ৩৩ বলে টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারের নবম হাফ-সেঞ্চুরি তুলে নেন মেন্ডিস।
উইকেটে গিয়েই মারমুখী হয়ে উঠেন পাঁচ নম্বরে নামা ভানুকা রাজাপাকসে। ২টি চারে ইনিংস শুরু করে ১৩ বলে ১৯ রান করে থামেন তিনি। মেন্ডিসের সাথে ১৯ বলে ৩৪ রান যোগ করেন রাজাপাকসে।
রাজাপাকসের আউটের পর চার বলের ব্যবধানে ৩টি ছক্কা মারেন মেন্ডিস ও অধিনায়ক দাসুন শানাকা। ১টি ছক্কায় ৫ বলে ৮ রান করেন শানাকা। তবে শ্রীলংকাকে ভাল  স্কোর এনে দিয়ে শেষ ওভারে বিদায় নেয়ার আগে পাঁচটি করে চার-ছক্কায় ৪৪ বলে যৌথভাবে ক্যারিয়ার সেরা ৭৯ রান করেন ম্যাচ সেরা নির্বাচিত হওয়া  মেন্ডিস। ২০ ওভারে ৬ উইকেটে ১৬২ রান করে শ্রীলংকা। নেদারল্যান্ডসের মিকেরেন-লিডে ২টি করে উইকেট নেন।
সুপার টুয়েলভ নিশ্চিত করতে ১৬৩ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে  পাওয়া প্লেতে ৪০ রান তুললেও ২ উইকেট হারায় নেদারল্যান্ডস।
মিডল-অর্ডারের দুই ব্যাটার টম কুপারকে নিয়ে ২৫ ও অধিনায়ক স্কট এডওয়ার্ডসের সাথে ১৮ বলে ২৮ রান তুলেন ওপেনার ম্যাক্স ও’দাউদ। তাতে ১৪তম ওভারেই ১শ রান পেয়ে যায় নেদারল্যান্ডস। এমন অবস্থায় শেষ ৫ ওভারে ৫ উইকেট হাতে নিয়ে ৬১ রান দরকার পড়ে ডাচদের।
ক্রিজে সেট ব্যাটার ও’দাউদ  থাকায় জয়ের আশা করছিলো  নেদারল্যান্ডস। কিন্তু সাত নম্বর থেকে শেষ ব্যাটার পর্যন্ত কেউই ও’দাউদকে  সঙ্গ দিতে পারেনি। একা লড়াই করেও দলের হার এড়াতে পারেনি তিনি। ২০ ওভারে ৯ উইকেটে ১৪৬ রানের বেশি করতে পারেনি নেদারল্যান্ডস। ৫৩ বলে ৬টি চার ও ৩টি ছক্কায় ৭১ রানে অপরাজিত থেকে যান ও’দাউদ।
শ্রীলংকার স্পিনার হাসারাঙ্গা ডি সিলভা ২৮ রানে ৩ উইকেট নেন।

আপনি কি মনে করেন?

0 টি পয়েন্ট
উপনোট ডাউনভোট

একটি মন্তব্য

তিনটি গোল বাতিলের পরও রিয়ালের সহজ জয়

ডিসেম্বরে আসছে ভারতীয় ক্রিকেট দল