ভিতরে

আক্ষেপের মাঝেও বিশ্বকাপের জন্য দল প্রস্তুত জানালেন সাকিব  

 অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে ২টি টেস্ট ও  ৬টি ওয়ানডে খেলার অভিজ্ঞতা আছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের । কিন্তু কখনও আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি খেলেনি টাইগাররা। তাই এই আগামীকাল থেকে শুরু হতে যাওয়া টি-টোয়েন্টি বিশ^কাপ দিয়ে প্রথমবারের মত অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে সংক্ষিপ্ত ভার্সনে ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ।
অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে টি-টোয়েন্টি খেলার অভিজ্ঞতা না থাকলেও বিশ^কাপের মত বড় মঞ্চের জন্য দল প্রস্তুত বলে জানালেন বাংলাদেশ অধিনায়ক সাকিব আল হাসান।
টি-টোয়েন্টি বিশ^কাপর শুরুর আগে মেলবোর্নের রিজেন্ট থিয়েটার প্লাজার বলরুমে অংশগ্রহনকারী ১৬টি দেশের অধিনায়কদের নিয়ে আইসিসি আয়োজিত  ফটোসেশন ও প্রশ্ন-উত্তর পর্বে কথা বলেন  সাকিব।
১৬টি দলকে দুইভাগে ভাগ করা হয়। প্রথমভাগে ক্যাপ্টেন্স ডে’র প্রশ্ন-উত্তর পর্বে ছিলেন অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, শ্রীলংকা, ইংল্যান্ড, আফগানিস্তান, নামিবিয়া, সংযুক্ত আরব আমিরাত ও নেদারল্যান্ডসের অধিনায়ক।
পরের ভাগে ছিলেন ভারত, পাকিস্তান, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, দক্ষিণ আফ্রিকা, জিম্বাবুয়ে, আয়ারল্যান্ড, স্কটল্যান্ড ও বাংলাদেশের অধিনায়ক।
এসময় ভারতের রোহিত শর্মা ও পাকিস্তানের বাবর আজমকে নিয়ে প্রশ্ন ছিল সবচেয়ে বেশি। শেষ দিকে সঞ্চালক নিজেই সাকিবকে প্রশ্ন করেন। বিশ^কাপে দলের প্রস্তুতি সর্ম্পকে জানতে চান।
সদ্যই নিউজিল্যান্ডের মাটিতে ত্রিদেশীয় সিরিজ খেলেছে বাংলাদেশ। ঐ সিরিজে চার ম্যাচ খেলে কোন জয় পায়নি টাইগাররা। তারপরও বিশ্বকাপের জন্য ত্রিদেশীয় সিরিজে দল ভালো প্রস্তুতি নিয়েছে বলে জানান সাকিব।
তিনি বলেন, ‘আমার মতে, ভালো প্রস্তুতি নিয়েছি আমরা। ক্রাইস্টচার্চে খুব ভালো দু’টি দলের বিপক্ষে চারটি ম্যাচ খেলেছি। তাই আমরা এখন জানি অস্ট্রেলিয়ায় ভালো খেলার জন্য কি করতে হবে। আমি মনে করি, ভালো করার জন্য আমরা পুরোপুরি প্রস্তুত।’
দল নিয়ে বলতে গিয়ে সাকিব জানান, প্রথমবারের মত অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি খেলবে বাংলাদেশ। তিনি বলেন, ‘আমি মনে করি আমাদের এই দলটা খুব রোমাঞ্চকর। আমাদের অনেক নতুন খেলোয়াড় আছে। এটি তাদের জন্য দারুণ অভিজ্ঞতা হবে। আমাদের সবাই প্রথমবারের মতো অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি খেলবে। আমিও প্রথম খেলবো। তাই এটি নতুন অভিজ্ঞতা হতে যাচ্ছে।’
সাকিবের কথা শেষ হবার সাথে-সাথে সঞ্চালক বলেন, আমি তো জানি না অস্ট্রেলিয়ায় এবারই প্রথম টি-টোয়েন্টি ম্যাচ। এরপর সাকিব হাসি দিয়ে বলেন, ‘হ্যাঁ, প্রথম টি-টোয়েন্টি। আমি ১৫ বছর ধরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলছি!’
দেশের হয়ে অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে টি-টোয়েন্টি না খেললেও, ক্যাঙ্গারুদের দেশে সংক্ষিপ্ত ভার্সনে খেলার অভিজ্ঞতা আছে সাকিবের। অ্যাডিলেইড স্ট্রাইকার্স ও মেলবোর্ন রেনেগেডসের হয়ে অস্ট্রেলিয়ার ফ্র্যাঞ্চাইজি বিগ ব্যাশ টি-টোয়েন্টিতে খেলেছেন তিনি।
আগামী ২৪ অক্টোবর বিশ্বকাপ মিশন শুরু করবে বাংলাদেশ। বিশ্বকাপ মিশন শুরুর আগে ১৭ অক্টোবর আফগানিস্তান ও ১৯ অক্টোবর দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে দু’টি প্রস্তুতিমূলক ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ।

আপনি কি মনে করেন?

0 টি পয়েন্ট
উপনোট ডাউনভোট

একটি মন্তব্য

অষ্টম টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের পূর্ণাঙ্গ সূচি

ক্যাপ্টেন্স ডে’তে বাবরকে চমকে দিলো আইসিসি