ভিতরে

মোমিনুল ও তাইজুলের প্রতি মিরাজের কৃতজ্ঞতা

অ্যান্টিগা টেস্টের প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশের সেরা বোলার অফ-স্পিনার মেহেদি হাসান মিরাজ। ৫৯ রানে ৪ উইকেট নেন তিনি। বল করেছেন২২ দশমিক ৫ ওভার। অথচ প্রথম স্পেলে হতাশ ছিলেন এই ডান-হাতি বোলার। হতাশকে ঝেড়ে ফেলে মিরাজের  সেরাটা দিতে তাকে সমর্থন দিয়ে গেছেন দলের দুই সতীর্থ সাবেক অধিনায়ক মোমিনুল হক ও আরেক স্পিনার তাইজুল ইসলাম। দ্বিতীয় দিনের খেলা শেষে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সাবেক ক্রিকেটার ড্যারেন গঙ্গার সাথে  আলাপকালে  এ  কথা জানান মিরাজ।
তিনি বলেন, ‘আমি প্রথম ২-৩টা স্পেলে হতাশ ছিলাম। কারণ ভালো বোলিং হচ্ছিল না, ঠিক জায়গায় করতে পারছিলাম না। মানসিকভাবে ফোকাসড হওয়াটা জরুরি ছিল। তবে  এ সময় সতীর্থ মোমিনুল ও তাইজুল আমাকে দারুণ সমর্থন দিয়েছে। তাদের দু’জনকে ধন্যবাদ দিতে চাই।’
প্রথম দিকে উইকেট শিকারের জন্য মরিয়া ছিলেন মিরাজ। কিন্তু সাফল্য ধরা দিচ্ছিলো না । তাই পরিকল্পনা বদলে একই জায়গায় বল করে যাবার সিদ্বান্ত নেন তিনি। উইকেট পেতে ডট বল করতে মনোযোগি হন মিরাজ।
তিনি বলেন, ‘আমার কাছে মনে হয় উইকেট কিছুটা ধীরগতির ছিল। এই উইকেটে শুধু একই জায়গায় বল করে যাওয়াটাই সঠিক সিদ্ধান্ত। এতে করে ব্যাটারদের আউট হবার সম্ভাবনা থাকে। আমি আসলে তখন ডট বল দেওয়াতে মনোযোগ দিয়েছি। এরপরই সাফল্য এসেছে।’
তিনি আরও বলেন, ‘প্রথম দুই-তিন স্পেলে আমি উইকেটের জন্য বল করেছি। এটাই সমস্যা হয়েছিল। এরপর আমি রান আটকানোর দিকে নজর দেই। ওভারপ্রতি আড়াই রানের মতো দিলে, সুযোগ আসবে বলে মনে করেছিলাম। যা ভেবেছি তাই হয়েছে।’
দ্বিতীয় দিন শেষে ৮ উইকেট হাতে নিয়ে ১১২ রানে পিছিয়ে বাংলাদেশ।  তৃতীয় দিনে দলের লক্ষ্যে কথা জানান মিরাজ, ‘ব্যাটারদের দিকে তাকিয়ে আছি আমরা। যদি দু’টি শত রানের জুটি হয়, দু’জন ব্যাটার ৭০ করে রান পায় তবে আমাদেরও সুযোগ আছে। আমাদের লক্ষ্য, আগামীকাল(আজ) পুরো দিন ব্যাট করা। ভালো ব্যাট করলে সুযোগ থাকবে।’
এদিকে, বাংলাদেশী বোলারদের প্রশংসা করেছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের অধিনায়ক ক্রেইগ ব্র্যাথওয়েট। তিনি বলেন, ‘আমার মতে, বাংলাদেশের বোলাররা সত্যিই ভালো বল করেছে। স্পিনাররা ভালো করেছে। লাইন-লেংথ ধরে রেখেছে তারা।’
মিরাজ ছাড়াও উইকেটের দেখা পেয়েছেন খালেদ-এবাদত-মুস্তাফিজুর-সাকিব। খালেদ-এবাদত ২টি করে এবং মুস্তাফিজুর-সাকিব ১টি করে উইকেট নেন।
 

আপনি কি মনে করেন?

0 টি পয়েন্ট
উপনোট ডাউনভোট

একটি মন্তব্য

শততম ম্যাচে শ্রীলংকা-অস্ট্রেলিয়া দু’দলেরই লক্ষ্য এগিয়ে যাওয়া

দ্বিতীয়বার কিয়েভ সফরে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন