ভিতরে

নওগাঁয় ৫৭ হাজার ৯১০ হেক্টর জমিতে আউশ চাষ

জেলায় চলতি আউশ মৌসুমে মোট ৫৭ হাজার ৯১০ হেক্টর জমিতে আউশ ধানের চাষ হয়েছে। স্থানীয় কৃষি বিভাগের সূত্রে জানা গেছে চাষকৃত এ জমি থেকে হেক্টর প্রতি ২ দশমিক ৭০ মেট্্িরকটন হিসেবে মোট ১ লাখ ৫৬ হাজার ৬৬৮ মেট্রিকটন চাল উৎপাদিত হবে। 
কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মোঃ শামসুল ওয়াদুদ জানিয়েছেন ,ইতিমধ্যেই জেলায় আউশ ধানের চারা রোপণ শেষ হয়েছে। 
উপজেলা ভিত্তিক আউশ চাষের পরিমাণ হচ্ছে নওগাঁ সদর উপজেলায় ৩ হাজার ৭৫০ হেক্টর।রানীনগর উপজেলায় ১ হাজার ২০৫ হেক্টর, আত্রাই উপজেলায় ১ হাজার ৭৮০ হেক্টর। বদলগাছি উপজেলায় ১ হাজার ৪শ হেক্টর, মহাদেবপুর উপজেলায় ১৩ হাজার ১২০ হেক্টর। পতœীতলা উপজেলায় ৬ হাজার ৫শ হেক্টর, ধামইরহাট উপজেলায় ২ হাজার ২৮০ হেক্টর। সাপাহার উপজেলায় ৭৯৫ হেক্টর, পোরশা উপজেলায় ৯৫০ হেক্টর. মান্দা উপজেলায় ১৬ হাজার ৫শ হেক্টর ও পোরশা উপজেলায় ৯ হাজার ৬৩০ হেক্টর জমি। 
রোপণকৃত জমির মধ্যে ৩৪ হাজার ৮৬০ হেক্টর জমিতে পার্চিং ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। এ ব্যবস্থার আওতায় আউশ ধানের জমিতে ক্ষেতের মাঝে মাঝে গাছের ডাল, বাঁশের আগা কিংবা বাঁেিশর কঞ্চি পুঁতে দেয়া হয়েছে। এসব ডাল, বাঁশের আগা কিংবা কঞ্চিতে পাখি বসবে। এসব পাখি ধান ক্ষেতের বিভিন্নœ পোকামাকড় খেয়ে ধানকে পোকামাকড়মুক্ত রাখবে। এটাকে বলা হয় প্রাকৃতিক ভাবে বালাইমৃক্তকরন। এতে ধানের ফলন বেশী হবে।

আপনি কি মনে করেন?

0 টি পয়েন্ট
উপনোট ডাউনভোট
উত্তর দিন

মন্তব্য করুন

কাসাভা চাষে পালটে যেতে পারে লালমাই পাহাড়ের অর্থনীতি

অধিক সংখ্যক শিপিং লাইনার মনোনয়ন দেয়ার অনুরোধ বিজিএমইএ’র