ভিতরে

প্রবাসীরা দেশে বিনিয়োগ করুন : সালমান এফ রহমান

প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান বলেছেন, বাংলাদেশের অর্থনীতির অগ্রযাত্রা আরও তরান্বিত করতে বিনিয়োগ দরকার। সেই প্রয়োজনীয়তা থেকে প্রবাসীদের বিনিয়োগ সংক্রান্ত সব ধরনের জটিলতা কমানোর উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। তিনি প্রবাসীদের দেশে বিনিয়োগে এগিয়ে আসার আহবান জানান।
যুক্তরাষ্ট্রের সানফ্রান্সিসকোতে বাংলাদেশের অর্থনীতি নিয়ে ১০ দিনের রোড শোর সমাপনী অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি।
অনুষ্ঠানে যুক্তরাষ্ট্র সরকারের পক্ষ থেকে বক্তব্য দেন ক্যালিফোর্নিয়া অঙ্গরাজ্যের মেয়র লিসা এম গিলমোর। বাংলাদেশের পক্ষে প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা ছাড়াও বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম, আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সিনিয়র সচিব আব্দুর রউফ তালুকদার, বাণিজ্যসচিব তপন কান্তি ঘোষ, বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের  (বিডা) নির্বাহী চেয়ারম্যান মো. সিরাজুল ইসলাম, বাংলাদেশ রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চল কর্তৃপক্ষের (বেপজা)  নির্বাহী চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল মো. নজরুল ইসলাম, বিএসইসির কমিশনার ড. মিজানুর রহমান প্রমূখ বক্তব্য রাখেন।
সালমান এফ রহমান বলেন, ‘বাংলাদেশের অর্থনীতি ধারাবাহিকভাবে এগিয়ে যাচ্ছে। অর্থনীতিতে নেতৃত্ব দিচ্ছে বেসরকারি খাত। বিভিন্ন উৎপাদনশীল কোম্পানি, ব্যাংক, বিমা, মিডিয়া এবং বিদ্যুৎ খাতেও নেতৃত্ব দিচ্ছে বেসরকারি খাত।’
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্বের কারণেই এটি সম্ভব হয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করে উপদেষ্টা বলেন, বাংলাদেশ এখন ডিজিটাল অর্থনীতির দিকে যাচ্ছে।
অনুষ্ঠানে অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম বলেন, ‘বাংলাদেশের বর্তমান পরিবেশ বিনিয়োগবান্ধব। রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা, অর্থনৈতিক সক্ষমতা, মানুষের ক্রয়ক্ষমতা, মুদ্রার বিনিময় হার, যুব শ্রমশক্তি এবং ইকো সিস্টেম সবকিছুই বিনিয়োগ উপযোগী।’
তিনি বলেন, ‘ভেঞ্চার ক্যাপিটাল এবং স্টার্টআপ বিজনেসের সম্ভাবনা বাড়ছে। বিশেষ করে মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসের গ্রাহক দ্রুত গতিতে বেড়েছে। এ অবস্থায় বিনিয়োগের এখনই উপযুক্ত সময়।’
বাংলাদেশে বিনিয়োগের পরিবেশ তুলে ধরে বিএসইসি চেয়ারম্যান জানান,  বিনিয়োগকারীদের সব ধরনের সহায়তা দেয়া হচ্ছে। অবকাঠামো উন্নয়ন ব্যাপক বিনিয়োগ করছে বাংলাদেশ। অভ্যন্তরীণ বিশাল বাজার থাকার পাশাপাশি মানুষের ক্রয়ক্ষমতা বেড়েছে। তাই বাংলাদেশে বিনিয়োগ করলে লাভবান হওয়ার যথেষ্ট সুযোগ রয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।
বিডার নির্বাহী চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম বলেন, ‘আইটিভিত্তিক স্টার্টআপকে সহায়তা দিচ্ছে সরকার। এবারের বাজেটেও বিভিন্ন সহায়তার কথা বলা হয়েছে। ২৯টি হাইটেক পার্কের অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এসব পার্কে ইউটিলিটি সুবিধা সবচেয়ে বেশি।’
ক্যালিফোর্নিয়া অঙ্গরাজ্যের মেয়র লিসা এম গিলমোর বাংলাদেশকে উদীয়মান অর্থনীতির দেশ উল্লেখ করে বাংলাদেশের অগ্রযাত্রার প্রশংসা করেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ ও গতিশীল নেৃতৃত্বে এই অগ্রযাত্রা সম্ভব হয়েছে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

আপনি কি মনে করেন?

0 টি পয়েন্ট
উপনোট ডাউনভোট
উত্তর দিন

মন্তব্য করুন

যশোরের গ্রামীণ অর্থনীতিকে চাঙ্গা করে তুলছে পোল্ট্রি খামার

কোভিড আক্রান্তদের সহায়তায় বিজিএমইএর তহবিলে ইপিক গ্রুপের অনুদান