ভিতরে

নিষেধাজ্ঞা শেষে সাগরে মাছ ধরতে যাচ্ছেন জেলেরা

জেলার সমুদ্রগামী জেলেরা ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে আজ মধ্যরাত থেকে সাগরে মাছ শিকারে রওয়ানা হচ্ছেন। চলছে জাল ও ফিশিং বোটসহ মাছ ধরার সরঞ্জাম নিয়ে শেষ মূহুর্তের প্রস্তুতি। মাছের আড়ৎগুলোতেও ধোয়া-মোছার কাজ চলছে। 
নিষেধাজ্ঞার অবসরে উপকূলের বিভিন্ন স্থানে জাল প্রস্তুতের পাশাপাশি ফিশিং বোট মেরামত  করেছেন জেলেরা। অধিকাংশ ট্রলারে মাছ ধরার প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম, উপকরণ এবং খাদ্য সামগ্রী বোঝাই করা হয়েছে।
জেলেরা জানান, গত দুই মাস সাগরে মাছ শিকার বন্ধ ছিল। নিয়ম মেনেছি। কেউ মাছ শিকারে যাইনি। এখন নিষেধাজ্ঞা শেষ তাই সাগরে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছি। 
জেলা ট্রলার মালিক ও মৎস্যজীবী সমিতির সভাপতি গোলাম মোস্তফা চৌধুরী জানান, করোনা পরিস্থিতিতে ট্রলারগুলোতে স্বাস্থ্য নিরাপত্তা মানার জন্য নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। স্বাভাবিকভাবেই সুস্থ ও সবল জেলেরাই সাগরে যাবেন। 
বরগুনা জেলা মৎস্য অফিসের তথ্যানুযায়ী, জেলার ৬ টি উপজেলায় মোট ২৯ হাজার ৫৪১টি জেলে পরিবার রয়েছে। নিবন্ধিত মৎস্যজীবীর সংখ্যা ৪৫,৬২১ জন, নিবন্ধিত যান্ত্রিক নৌযানের সংখ্যা ২০৫টি। দেশের উৎপাদিত মোট ইলিশের ১৩% বরগুনা জেলায় আহরণ করা হয়।
জেলা মৎস্য কর্মকর্তা বিশ^জিত কুমার দেব জানান, সাগরে মাছের প্রজনন ও উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে ইলিশসহ সকল প্রজাতির মাছ ধরার উপর গত ১৯ মে মধ্যরাত থেকে ২৩ জুলাই পর্যন্ত নিষেধাজ্ঞা জারী করা হয়। নিষেধাজ্ঞাকালীন জেলেদের খাদ্য সহায়তা হিসেবে সরকারিভাবে চাল দেয়া হয়েছিল।

আপনি কি মনে করেন?

0 টি পয়েন্ট
উপনোট ডাউনভোট
উত্তর দিন

মন্তব্য করুন

করোনাকালে সুবিধাবঞ্চিত মানুষের জন্য ফেনীতে সাড়ে ২৫শ’ টন চাল বরাদ্দ

পদ্মাসেতুর খুঁটির সঙ্গে ধাক্কা লেগে শাহজালাল ফেরির ২০ যাত্রী আহত