ভিতরে

ফুটপাতের অবৈধ স্থাপনা নিজ উদ্যোগে সরিয়ে নিন : চসিক মেয়র

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের (চসিক) মেয়র মো. রেজাউল করিম চৌধুরী বলেছেন, যারা নগরীর রাস্তাঘাট, ফুটপাত দখল করে ও নালার ওপর স্ল্যাব নির্মাণ করে ব্যবসা পরিচালনা করছেন তারা নিজ উদ্যোগে দ্রুত এসব অবৈধ স্থাপনা অপসারণ করবেন। অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে কোন ধরণের শৈথিল্য দেখানোর অবকাশ নেই।
আজ শনিবার সকালে নগরীর ২৭ নং দক্ষিণ আগ্রাবাদ ওয়ার্ডস্থ মা ও শিশু হাসপাতাল সংলগ্ন রাস্তার দুই পাশে নালা, ফুটপাত ও রাস্তার ওপরে অবৈধ দোকানপাট উচ্ছেদ অভিযান পর্যবেক্ষণকালে মেয়র এ কথা বলেন।
মেয়র আরো বলেন, ফুটপাতের ওপর স্থাপিত অবৈধ দোকানপাটের ময়লা আবর্জনা সরাসরি নালায় ফেলে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি এবং নগরীর সৌন্দর্য্য নষ্ট করা হচ্ছে। ব্যক্তি বিশেষের কারণে সাধারণ জনগণ কষ্ট পাবে, তা মেনে নেয়া যায় না।
তিনি বলেন, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে এ সকল অবৈধ স্থাপনা ও নালার ওপর অবৈধভাবে নির্মিত স্ল্যাব উচ্ছেদের কার্যক্রম হাতে নিয়েছে। কেউ যদি নিজ উদ্যোগে অবৈধ স্থাপনা অপসারণ না করেন, তাহলে চসিকের উচ্ছেদ কার্যক্রমের ব্যয় বহন করতে হবে ও আইনের আওতায় আনা হবে।
তিনি বলেন, দখলদার যত বড়ই হোক না কেন, কেউ ছাড় পাবে না।
রেজাউল করিম চৌধুরী আরো বলেন, আগ্রাবাদ এলাকা এমনিতেই নি¤œ এলাকা, এখানে স্বাভাবিক সময়ে জোয়ারের পানি ঢুকে পড়ে। এখানে একই সঙ্গে তিনটি ব্রিজের সংস্কার কাজ চলমান রয়েছে। ব্রিজ সংস্কারের দায়িত্বে নিয়োজিত ঠিকাদারের অসতর্কতার কারণে ড্রেনের পানি চলাচলে প্রতিবন্ধকতা তৈরি হয়েছে, যা চসিকের পরিচ্ছন্ন কর্মীদের দ্বারা অপসারণ করা সম্ভব নয়। তাই ব্রিজের কাজে নিয়োজিতদের এই প্রতিবন্ধকতা দূর করার জন্য তিনি নির্দেশ দেন।
তিনি জনসাধারণকে তাদের প্রতিষ্ঠান ও গৃহস্থালীর আবর্জনা, পলিথিন, প্লাস্টিক ও অন্যান্য আবর্জনা খাল ও নালায় না ফেলার জন্য জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে ওয়ার্ড কাউন্সিলদের তত্ত্বাবধানে মাইকিং, লিফলেট বিতরণের আহ্বান জানান।  
মেয়র বলেন, দেশে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ উদ্বেগজনক হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে। সংক্রমণের সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মৃত্যুর মিছিল। বিশেষজ্ঞগণের মতে এখনই সতর্ক না হলে, পরিস্থিতি আরো খারাপের দিকে যাবে। তাই আমাদেরকে সরকার-ঘোষিত লকডাউন ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। তাহলেই পরিস্থিতি উন্নতি হবে।
এ সময় দক্ষিণ আগ্রাবাদ ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. শেখ জাফরুল হায়দার চৌধুরী, চসিক উপ-প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা মোর্শেদুল আলম, পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা প্রণব শর্মাসহ চসিকের কর্মকর্তা-কর্মচারীগণ উপস্থিত ছিলেন।

আপনি কি মনে করেন?

0 টি পয়েন্ট
উপনোট ডাউনভোট
উত্তর দিন

মন্তব্য করুন

কুমিল্লায় করোনা প্রতিরোধে জেলা তথ্য অফিসের প্রচারণা

বগুড়ায় দু’টি বিশেষায়িত সরকারী করোনা হাসপাতালে হাই-ফ্লো ন্যাজল ক্যানোলা প্রদান