ভিতরে

ইউরো ২০২০: বেলজিয়ামকে হতাশ করে সেমিফাইনালে ইতালি

বিশ্ব র‌্যাঙ্কিংয়ের এক নম্বর দল বেলজিয়ামকে ২-১ গোলে পরাজিত করে ইউরো চ্যাম্পিয়নশীপের সেমিফাইনাল নিশ্চিত করেছে ইতালি। 
মিউনিখের আলিয়াঁজ এরিনাতে অনুষ্ঠিত কোয়ার্টার ফাইনালের ৩১ মিনিটে নিকোলো বারেলার গোলে এগিয়ে যায় ইতালি। বিরতির ঠিক আগে লরেঞ্জো ইনসিগনের গোলে ব্যবধান দ্বিগুন করে আজ্জুরিরা। প্রথমার্ধের ইনজুরি টাইমে রোমেলু লুকাকুর পেনাল্টিতে বেলজিয়াম কিছুটা হলেও ম্যাচের ফিরে আসার ইঙ্গিত দেয়। কিন্তু ইতালিয়ান কঠিন রক্ষন দূর্গের বিপরীতে শেষ পর্যন্ত আর পেরে উঠেনি রবার্তো মার্টিনেজের দল। 
মঙ্গলবার ওয়েম্বলির হাই ভোল্টেজ সেমিফাইনালে ইতালির প্রতিপক্ষ আরেক ফেবারিট স্পেন। 
এই পরাজয়ের মাধ্যমে ইউরোপীয়ান চ্যাম্পিয়নশীপে আরো একবার কোয়ার্টার ফাইনাল থেকেই বাড়ি ফিরতে হলো বেলজিয়ামকে। ২০১৬ সালে ওয়েলসের বিপক্ষে এই পর্যায় থেকেই বিদায় নিয়েছিল রেড ডেভিলসরা। হ্যামস্ট্রিং ইনজুরির কারনে অধিনায়ক এডেন হ্যাজার্ড কাল দলে ছিলেন না। তার পরিবর্তে অধিনায়কের আর্মব্যান্ড পড়ে খেলতে নামা কেভিন ডি ব্রুইনাও গোঁড়ালির ইনজুরির সাথে পাল্লা দিয়ে কাল পুরো সময় মাঠে ছিলেন। ম্যানচেস্টার সিটির এই প্লেমেকারকে ফিট করে তুলতে রাতদিন কাজ করেছে দলীয় মেডিকেল কর্তারা। 
পেনাল্টিতে এক গোল দেয়া লুকাকুকে কাল দুইবার হতাশ করেছেন আজ্জুরি গোলরক্ষক গিয়ানলুইগি ডোনারুমা। ম্যাচের ১৩ মিনিটে একটি ফ্রি-কিক থেকে দারুনভাবে বল নিয়ন্ত্রনে নিয়ে বেলজিয়ান গোলরক্ষক থিবো  কোর্তোয়াকে পরাস্ত করেছিলেন লিওনার্দি বনুচ্চি। কিন্তু ভিএআর প্রযুক্তিতে ধরা পড়ে অধিনায়ক গিওর্গিও চিয়েলিনি অফসাইড পজিশনে ছিলেন। মধ্যমাঠে মার্কো ভেরাত্তি ও ইওরি টিয়েলসম্যান একে অপরের সাথে বিরোধে হলুদ কার্ড দেখেছেন। ৩১ মিনিটে ডেডলক ভাঙ্গে ইতালি। বেলজিয়ানরা একটি বল ক্লিয়ার করতে ব্যর্থ হলে ভেরাত্তি বল বাড়িয়ে দেন বারেলার দিকে। দুজন ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে  কোর্তোয়াকে পরাস্ত করেন বারেলা। ৪৪ মিনিটে দারুন এক সংঘবদ্ধ আক্রমন থেকে নাপোলির ইনসিগনে কার্লিং শটে ব্যবধান দ্বিগুন করলে ইতালিয়ান সমর্থকরা উল্লাসে ফেটে পড়ে। হ্যাজার্ডের পরিবর্তে মাঠে নামা জেরেমি ডকুকে ফাউলের অপরাধে গিওভান্নি ডি লোরেঞ্জোর বিপক্ষে পেনাল্টি আদায় করে নেয় বেলজিয়াম। স্পট কিক থেকে কোন ভুল করেননি লুকাকু। 
দ্বিতীয়ার্ধের মাঝামাঝিতে বেলজিয়াম ম্যাচের সেরা সুযোগ পেয়েও কাজে লাগাতে পারেনি। ডি ব্রুইনার ক্রস থেকে লুকাকুর শট কোনমতে আটকে দেন ইতালিয়ান ডিফেন্ডার লিওনার্দো স্পিনাজ্জোলা। শেষ ২০ মিনিটে ড্রিয়েস মার্টিনস ও নাকার চাডলিকে নামিয়েও সফল হতে পারেননি মার্টিনেজ। 
চার মিনিটের ব্যবধানে এই দুজন মাঠে নামান পর বেলজিয়াম আরো বেশী আক্রমনাত্মক হয়ে উঠে। মার্টিনসের কাছ থেকে বল পেয়ে চাডলি ক্রস করলেও তার ডিফ্লেকটেড হয়ে লুকাকু ও থ্রোগান হ্যাজার্ড পর্যন্ত পৌঁছাতে পারেনি। ম্যাচের সময় যত গড়িয়ে বেলজিয়াম গোলের জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছিল। তিনজন ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে ডকু শট নিলেও তা ক্রসবারের উপর দিয়ে বাইরে চলে যায়। ডি ব্রুইনার ফ্রি-কিক্র আজ্জুরিদের রক্ষনভাগকে ভাঙ্গতে পারেনি।

আপনি কি মনে করেন?

0 টি পয়েন্ট
উপনোট ডাউনভোট
উত্তর দিন

মন্তব্য করুন

পরিত্যক্ত পাহাড়ে মিশ্র ফলজ বাগান করে সফল জীনবোধি মহথেরা

ইউরো ২০২০: সুইজারল্যান্ডকে কাঁদিয়ে সেমিফাইনালে স্পেন