ভিতরে

ঈদের আগেই কফিন বন্দি হয়ে বাড়ি ফিরেছে ইঞ্জিনিয়ার নোমান

কোরবানীর ঈদে বাড়ি আসার কথা ছিল ইঞ্জিনিয়ার নোমানের। ঈদের আগেই বাড়ি আসলো তবে কফিন বন্দি হয়ে। ইঞ্জিনিয়ার নোমানের মরদেহ দেখে স্বজনদের আহাজারিতে এলাকার বাতাস ভারি হয়ে ওঠে।   
আজ মঙ্গলবার সকালে নামাজে জানাজায় অংশ নেয়া শত শত মানুষের চোখের জলে পাঁচবিবি পৌর এলাকার টিএন্ডটি পাড়াতে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হলো মগবাজারের ভবনে বিষ্ফোরণের ঘটনায় নিহত  ইঞ্জিনিয়ার রুহুল আমিন নোমান (৩২) কে।                         
নিহত নোমানের বাবা ডা. খয়বর আলী বলেন, মৃত্যুর আগের দিনও কথা হয় ছেলের সঙ্গে। কোরবানীর ঈদে বাড়ি আসার কথা হয়। আমার ২ মেয়ে ১ ছেলে । নোমান সবার ছোট। ঢাকার ধানমিন্ড এলাকার একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিষয়ে লেখাপড়া  করে। লেখাপড়া শেষ করে  ঢাকাতেই  ’রহমান রহমান’ এসোসিয়েটস নামে একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি শুরু করে ঢাকাতেই থাকতো পরিবার নিয়ে। তার ২ বছরের এক কন্যা সন্তান রয়েছে। গত রোববার ঢাকা মগবাজার এলাকায় বিষ্ফোরণের ভবন ধ্বসে পড়ার ঘটনায় অন্যদের সঙ্গে নোমানও ঘটনাস্থলে মারা যান। পরিবারের লোকজনেরা খবর পেয়ে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গ থেকে লাশ নিয়ে সোমবার রাতে জয়পুরহাটের পাঁচবিবি পৌর শহরের টিএন্ডটি পাড়ার বাড়িতে পৌঁছে। মঙ্গলবার সকালে নামাজে জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।  নোমানের মৃত্যুর খবরে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে।

আপনি কি মনে করেন?

0 টি পয়েন্ট
উপনোট ডাউনভোট
উত্তর দিন

মন্তব্য করুন

আগামীকাল ১৬৬তম সাঁওতাল বিদ্রোহ দিবস

সাঁওতাল বিদ্রোহ : ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠির বৃটিশ বিরোধী প্রথম সংগঠিত আন্দোলন