ভিতরে

এসএমই খাতের উন্নয়নে জাতীয় বাজেটে সুনির্দিষ্ট পরিমান অর্থ-বরাদ্দ প্রয়োজন : শিল্পমন্ত্রী

শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তাদের (এসএমই) উৎসাহিত করার পাশাপাশি এ খাতের উন্নয়নে প্রতি বছরের জাতীয় বাজেটে সুনির্দিষ্ট পরিমান অর্থ-বরাদ্দ রাখার প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্ব আরোপ করেছেন।
বিশে^র অন্যান্য দেশের ন্যায় বাংলাদেশেও আজ নানা কর্মসূচির মধ্যদিয়ে আন্তর্জাতিক এমএসএমই দিবস পালন উপলক্ষ্যে প্রথমবারের মতো রাজধানীতে এক ওয়েবিনারের আয়োজন করা হয়। 
এসএমই ফাউন্ডেশন ও জাতিসংঘ শিল্প উন্নয়ন সংস্থার (ইউনিডো) যৌথ উদ্যোগে অনুষ্ঠিত এ ওয়েবিনারে প্রধান অতিথি ছিলেন শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন।
শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মোঃ আখতার হোসেন, শিল্পসচিব জাকিয়া সুলতানা এবং এফবিসিসিআই’র সভাপতি মোঃ জসিম উদ্দিন অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন। 
এসএমই ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মাসুদুর রহমানের সভাপতিত্বে এ অনুষ্ঠানে গেস্ট অব অনার হিসেবে অনলাইনে সংযক্ত ছিলেন জাতিসংঘ শিল্প উন্নয়ন সংস্থার (ইউনিডো) দক্ষিণ এশিয়ার আঞ্চলিক প্রতিনিধি ভ্যান বার্কেল রেনি। 
ওয়েবিনারের শুরুতেই স্বাগত বক্তৃতায় এসএমই ফাউন্ডেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. মোঃ মফিজুর রহমান বলেন, করোনার (কোভিড-১৯) প্রেক্ষাপটে এসএমই উদ্যোক্তাদের ক্ষতি কাটিয়ে উঠার লক্ষ্যে সরকারের প্রণোদনা প্যাকেজের আওতায় বরাদ্দকৃত ৩শ’ কোটি টাকার মধ্যে ফাউন্ডেশন ২০২০-’২১ অর্থবছরে এক শ’ কোটি টাকা বিতরণ করতে সক্ষম হয়েছে।
তিনি জানান, এসএমই খাতের উন্নয়নে এসএমই ফাউন্ডেশনের ৫ বছর মেয়াদী (২০২১-২৫) কৌশলগত উন্নয়ন রূপকল্প তৈরি, আগামী অর্থবছরের (২০২১-’২২) জন্য সরকারের প্রণোদনা প্যাকেজের আওতায় ২শ’ কোটি টাকা বিতরণ, জাতীয় পর্যায়ে ১টি এবং বিভাগ ও জেলা পর্যায়ে ১৬টি আঞ্চলিক এসএমই পণ্য মেলার আয়োজন, নতুন উদ্যোক্তা উন্নয়ন ও কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে ঢাকা ও চট্টগ্রামে দু’টি বিজনেস ইনকিউবেশন সেন্টার প্রতিষ্ঠা, দক্ষতা উন্নয়নে অন্তত ৫ হাজার উদ্যোক্তাকে প্রশিক্ষণ প্রদান, অনলাইন মার্কেটিংয়ে উদ্বুদ্ধকরণ ও প্রশিক্ষণ প্রদান, এসএমই উদ্যোক্তাদের বিশেষ করে নারী-উদ্যোক্তা ও ক্লাস্টার ভিত্তিক উন্নয়নে পণ্য প্রদর্শন ও বিক্রয়ের জন্য অনলাইন প্রোডাক্ট ডিসপ্লে¬ প্ল্যাটফর্ম ঠিক করেছে এসএমই ফাউন্ডেশন। 
ড. মফিজুর রহমান উল্লেখ করেন, এসএমই খাতের উন্নয়নে এসএমই ফাউন্ডেশনকে একটি কার্যকর ও স্মার্ট প্রতিষ্ঠানে রূপান্তর করাই হলো এমএসএমই দিবস পালনের মূল লক্ষ্য।
উল্লেখ্য, শোভন কর্মসংস্থান সৃষ্টি এবং জীবনযাত্রার মানোন্নয়নে মাইক্রো, ক্ষুদ্র ও মাঝারি খাতকে আরো এগিয়ে নিতে ২০১৭ সালের এপ্রিল মাসে জাতিসংঘ ২৭ জুনকে ‘এমএসএমই দিবস’ হিসেবে ঘোষণা করে। সে হিসাবে এ বছর সারা বিশ্বে পঞ্চম বারের মত দিবসটি পালিত হচ্ছে। 
এসএমই ফাউন্ডেশন এই প্রথম আনুষ্ঠানিকভাবে নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে ‘এমএসএমই দিবস’ পালনের উদ্যোগ গ্রহণ করে। এ উপলক্ষ্যে বিভিন্ন জাতীয় পত্রিকায় ক্রোড়পত্র প্রকাশ করা হয়। পাশাপাশি নেয়া হযেছে প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় প্রচার-প্রচারণার ব্যবস্থা। 
এ বছর এ দিবসের প্রতিপাদ্য নির্ধারন করা হয়েছে ‘কী টু অ্যান ইনক্লুসিভ এন্ড সাসটেইনেবল রিকোভারি’।
দেশের এমএসএমই উদ্যোক্তাদের সব ধরনের সহায়তা দিচ্ছে এসএমই ফাউন্ডেশন এ কথা উল্লেখ করে নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন বলেন, শিল্প মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনায় সারা-দেশের ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তাদের পণ্য উৎপাদন, বাজার সংযোগ সৃষ্টি এবং দক্ষতা উন্নয়নে এসএমই ফাউন্ডেশন কাজ করছে। এসব উদ্যোগের ফলে ধীরে ধীরে দেশের উদ্যোক্তাদের পণ্য সারা বিশ্ব জয় করবে বলেও তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

আপনি কি মনে করেন?

0 টি পয়েন্ট
উপনোট ডাউনভোট
উত্তর দিন

মন্তব্য করুন

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের দুই হাজার ৪৬৩ কোটি ৯৬ লাখ টাকার বাজেট ঘোষণা

অর্থনীতিতে বৈষম্য ও মুদ্রাস্ফীতি আগের চেয়ে কমেছে : পরিকল্পনামন্ত্রী