ভিতরে

টটেনহ্যামের ধার শেষে রিয়ালে ফেরার আশা করছেন বেল

আসন্ন গ্রীষ্ম মৌসুমে টটেনহ্যাম হটস্পারের সাথে ধারের মেয়াদ শেষ হবার পর আবারো রিয়াল মাাদ্রিদে ফিরে আসার আগ্রহ প্রকাশ করেছে গ্যারেথ বেল। ওয়েলস অধিনায়ক গত বছর সেপ্টেম্বরে নিয়মিত একাদশে সুযোগের লক্ষ্যে ধারে স্পার্সে পুনরায় যোগ দিয়েছিলেন। ২০১৩ সালে টটেনহ্যাম থেকে বিশ্ব রেকর্ড ৮৫ মিলিয়ন পাউন্ড চুক্তিতে বার্নাব্যুতে যোগ দিয়েছিলেন এই তারকা ফরোয়ার্ড।
বেলজিয়ামের বিপক্ষে ২০২২ বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের ম্যাচকে সামনে রেখে এক সংবাদ সম্মেলনে বেল বলেছেন, ইউরোর আগে আমি নিজের ভবিষ্যত নিয়ে কিছুই বলতে পারছিনা। এ বছর স্পার্সে ফিরে আসার আমার মূল লক্ষ্য ছিল আমি শুধুমাত্র ফুটবল খেলতে চাই এবং নিয়মিত দলে সুযোগ পেতে চাই। কিন্তু ইউরোর আগে সবচেয়ে জরুরী হচ্ছে ম্যাচ ফিটনেস বাড়ানো। প্রথম দিকে পরিকল্পনা ছিল স্পার্সে পুরো মৌসুম কাটানো। তবে ইউরো পর রিয়ালের হয়ে আমার আরো এক বছরের চুক্তি বাকি থাকবে। সে কারনেই এই মুহূর্তে আশা করছি রিয়ালে ফিরে যাবার, সত্যিকার অর্থেই আমি এটা চাই।
মাদ্রিদের হয়ে বেল ২০১৯-২০ মৌসুমে মাত্র ১৪টি ম্যাচে মূল একাদশে খেলেছেন। কোচ জিনেদিন জিদানের সাথে তার সম্পর্কটাও ভাল যাচ্ছিল না। যে কারনে স্পার্সে ধারে খেলতে তিনি সিদ্ধান্ত নেন। এবারের গ্রীষ্মের আগে বেলকে স্থায়ীভাবে দলে ভেড়ানোর ব্যপারে অবশ্য এখনো কোন সিদ্ধান্ত জানায়নি টটেনহ্যাম। টটেনহ্যামে ফিরে আসার পর ৩১ বছর বয়সী বেল ফিটনেস ও ফর্ম নিয়ে দু:শ্চিন্তায় রয়েছে। যদিও টটেনহ্যাম তাদের সাবেক সেরা পারফরমারকে দলে ধরে রাখার ইঙ্গিত দিয়েছে।
এবারের মৌসুমে এখনো পর্যন্ত হোসে মরিনহোর অধীনে বেল ২৫ ম্যাচে ১০ গোল করেছেন। ২০২২ সালের জুনে বার্নাব্যুর সাথে তার বর্তমান চুক্তি শেষ হয়ে যাচ্ছে। বর্তমানে প্রিমিয়ার লিগ টেবিলের ষষ্ঠ স্থানে রয়েছে টটেনহ্যাম। যদিও ইউরোপা লিগ থেকে গত সপ্তাহে বিদায়ে মরিনহোর ভবিষ্যত নিয়েই শঙ্কা দেখা দিয়েছে। বর্তমানে আন্তর্জাতিক দায়িত্ব পালনে স্পার্স ছেড়ে ওয়েলস জাতীয় দলে যোগ দিয়েছেন বেল। সংবাদ সম্মেলনে বেল আরো বলেছেন, আমি সব সময়ই বিশ^াস করি যখন কোন কিছু পরিকল্পনা মত হবে না তখন কিছুদিনের জন্য বিশ্রাম নেয়া প্রয়োজন, সেটা হতে পারে ক্লাব ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে। বিশেষ করে ক্লাবের পরিবেশ থেকে মানসিক ভাবে কিছুদিন সড়ে থাকা উচিত। অবশ্যই এই সময়ের মধ্যে আমরা দুটি ম্যাচের জন্য সবাই জাতীয় দলের সাথে আছি, যা সবাইকে বাড়তি অনুপ্রেরনা যোগাবে। দেশকে প্রতিনিধিত্ব করার বিষয়টি সম্পূর্ণ ভিন্ন। এটা একজন ফুটবলারের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এই সময়ে ক্লাব জীবন একেবারেই মাথায় থাকে না।
বেলজিয়ামের সাথে ম্যাচের পর শনিবার কার্ডিফে মেক্সিকোর মুখোমুখি হবে ওয়েলস। আগামী মঙ্গলবার বিশ^কাপ বাছাইপর্বে ঘরের মাঠে চেক প্রজাতন্ত্রের মোকাবেলা করবে।

আপনি কি মনে করেন?

0 টি পয়েন্ট
উপনোট ডাউনভোট
উত্তর দিন

মন্তব্য করুন

ইউরোপা লিগ: ম্যান ইউ, লিভারপুলের ইউরোপা ও চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ম্যাচ স্পেনে

হোয়াইটওয়াশ এড়াতে চায় বাংলাদেশ