ভিতরে

চার বছর পর সুইডেন জাতীয় দলে ফিরলেন ইব্রাহিমোভিচ

বিশ্বকাপ বাছাইপর্বকে সামনে রেখে চার বছর পর সুইডেন জাতীয় দলে ফিরেলেন এসি মিলানের অভিজ্ঞ ফরোয়ার্ড জ্লাটান ইব্রাহিমোভিচ। স্বাভাবিক ভাবেই এই ফিরে আসাটা খুব একটা সহজ ছিলনা ইব্রার জন্য। যে কারনে কিছুটা আবেগপ্রবন হয়ে পড়েছিলেন এই তারকা স্ট্রাইকার।
৩৯ বছর বয়সী ইব্রা ২০১৬ সালের ইউরো চ্যাম্পিয়নশীপের পর আন্তর্জাতিক ফুটবলকে বিদায় জানিয়েছিলেন। কিন্তু বিদায় জানানোর সিদ্ধান্ত নেবার পরও তার মনে আশা ছিল সুইডিশ দল তাকে আবারো জাতীয় দলে ডাকবে এবং তিনি বিশ্ব ফুটবলে ফিরে আসবেন। আর তার সেই আশা পূরন করেছেন সুইডেনের বর্তমান কোচ জেনি এ্যান্ডারসন। প্রথমবারের মত জাতীয় দলের একজন সদস্য হিসেবে চার বছর পর নিজের সেই অনুভূতির কথা সংবাদ সম্মেলনে গণমাধ্যমের সামনে বলতে গিয়ে বেশ আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েন ইব্রা। এ সময় তার পাশে কোচ এ্যান্ডারসন ছিলেন।
সুইডেনের সর্বকালের সর্বোচ্চ গোলদাতা ইব্রাহিমোভিচ জাতীয় দলের জার্সি গায়ে ১১৬ ম্যাচে ৬২ গোল করেছেন। ২০২০ সালের শেষের দিকে এক পত্রিকায় দেয়া সাক্ষাতকারে জাতীয় দলে ফিরে আসার আগ্রহ প্রকাশ করেছিলেন। তারপরপরই এ্যান্ডারসন দ্রুত মিলানে উড়ে গিয়ে সাবেক অধিনায়ককে দলে ফেরানোর যাবতীয় আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করার চেষ্টা করেন। ইব্রা বলেন, ‘একজন ফুটবলার হিসেবে জাতীয় দলে খেলার মত বড় কিছু আর হতে পারেনা। জাতীয় দল থেকে চলে যাবার পরও আমি সব সময়ই তাদের খেলা অনুসরন করেছি। ভিতরে ভিতরে আমার মনে হয়েছে আমি যদি দলকে সহযোগিতা করতে পারতাম তাহলে ভাল লাগতো। জাতীয় দলের জন্য, দেশের জন্য কিছু করার তাগিদ সবসময়ই অনুভব করেছি।’
যদিও কোচ এ্যান্ডারসনের সাথে প্রায়ই বিভিন্ন বিষয় নিয়ে মতবিরোধ হয়েছে ইব্রার। অতীতে তাদের এই বিরোধের বিষয়টি বিভিন্ন গণমাধ্যমেও প্রকাশ পেয়েছে। ইব্রা বলেন, ‘অবশ্যই এখানে যেকোন একজন দায়ী নয়। একজন খেলোয়াড় কি চায় ও একজন কোচ কি চায় তা পারষ্পরিক সমঝোতার ভিত্তিতেই সমাধান করা উচিত। এখন আমার সামনে সুযোগ এসেছে আবারো দেশের জার্সি গায়ে প্রতিনিধিত্ব করার। আমি দারুনভাবে সম্মানিত বোধ করছি। কিন্তু বিষয়টি হচ্ছে শুধুমাত্র অনুভূতি প্রকাশ নয়, সত্যিকার অর্থেই দেশকে কিছু দেবার জন্যই এখানে ফিরে এসেছি। কোচ ও সতীর্থদের জন্য ও পুরো দেশের জন্য আমি ফলাফল এনে দিতে চাই। কথা বলে কিছু হবে না, মাঠে তার প্রমান দিতে হবে।’
বৃহস্পতিবার জর্জিয়ার বিপক্ষে ঘরের মাঠের ম্যাচ দিয়ে সুইডেন তাদের বিশ^কাপ বাছাইপর্বে মিশন শুরু করবে। তিনদিন পর দ্বিতীয় ম্যাচে কসভো সফওে যাবে। এরপর এস্তোনিয়ার বিপক্ষে একটি প্রীতি ম্যাচে অংশ নিবে।

আপনি কি মনে করেন?

0 টি পয়েন্ট
উপনোট ডাউনভোট
উত্তর দিন

মন্তব্য করুন

কঠিন মৌসুমটা ভালভাবে শেষ করতে চান সালাহ

লাথামের সেঞ্চুরিতে বাংলাদেশের বিপক্ষে সিরিজ জয় নিশ্চিত করলো নিউজিল্যান্ড