ভিতরে

বঙ্গবন্ধুর লালিত অসাম্প্রদায়িক ও গণতান্ত্রিক চেতনায় শিশুদের উদ্বুদ্ধ করতে হবে : শিল্পমন্ত্রী

শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর লালিত অসাম্প্রদায়িক ও গণতান্ত্রিক চেতনায় বেড়ে উঠার জন্য কোমলমতি শিশুদের উদ্বুদ্ধ করার ওপর গুরুত্ব আরোপ করেছেন।
তিনি বলেন, শিশুরা যাতে আগামী দিনে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে অসা¤প্রদায়িক দেশ বিনির্মাণে নিজেদের আত্মনিয়োগ করতে পারে, সেজন্য সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিতে হবে।
‘আমরা ভাগ্যবান, জাতির পিতার গড়া শিল্প মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে থেকে তাঁর অসমাপ্ত কাজের অংশ নিতে পারছি’-একথা উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন,‘আজকের দিনে জাতির কাছে আমাদের প্রতিজ্ঞা বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা বিনির্মাণে শিল্প মন্ত্রণালয়ের অর্পিত দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করবো।’
নূরুল মজিদ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবার্ষিকী উপলক্ষে বুধবার বিকেলে শিল্প মন্ত্রণালয় আয়োজিত ‘শিশু অধিকার রক্ষায় বঙ্গবন্ধু’ শীর্ষক এক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।
শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার এমপি এ সেমিনারে বিশেষ অতিথি ছিলেন।
মন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে অনুসরন করে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। আওয়ামী লীগ দীর্ঘ সময় রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্বে আছে বলেই দেশও শিল্প সমৃদ্ধ হয়েছে এবং শিল্প-উন্নয়নের সুফল সবাই ভোগ করতে পারছে।
বঙ্গবন্ধু আজীবন গণতান্ত্রিক ও উন্নয়নের রাজনীতি করেছেন বলেই, বাংলাদেশ আজ উন্নয়নশীল দেশে পরিণত হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দেশ পরিচালনায় পরিপূর্ণ জ্ঞান ছিল বলেই স্বাধীনতা পরবর্তী অতিঅল্প সময়েই দেশ পুনর্গঠন করতে পেরেছিলেন।’
শিল্পসচিব কে এম আলী আজমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন, বাংলাদেশ চিনি ও খাদ্য শিল্প করপোরেশনের চেয়ারম্যান মোঃ আরিফুর রহমান অপু ।
মূল প্রবন্ধের উপর আলোচনায় অংশ নেন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব, মোঃ গোলাম ইয়াহিয়া, যুগ্মসচিব, ড. নাছিম আহমেদ, বিসিকের চেয়ারম্যান মো. মোশতাক হাসান এবং বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প ফাউন্ডেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. মোঃ মফিজুর রহমান।
মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাসহ দপ্তর/সংস্থার প্রধানরা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।
এছাড়াও মন্ত্রী এবং প্রতিমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি ও মন্ত্রণালয়ের লবিতে স্থাপিত বঙ্গবন্ধু’র ম্যুরালে পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন এবং দোয়া-মোনাজাতে অংশ নেন। তারা বঙ্গবন্ধু কর্ণারও পরিদর্শন করেন।
পরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর জন্ম শতবার্ষিকী উপলক্ষে কেক কাটেন।

আপনি কি মনে করেন?

0 টি পয়েন্ট
উপনোট ডাউনভোট
উত্তর দিন

মন্তব্য করুন

মুক্তিযুদ্ধে প্রথম প্রতিরোধ গাজীপুরে

বাংলাদেশ এবং মালদ্বীপের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক শুরু